সবাই মিলে বিদেশ-ফেরতদের পাশে থাকতে হবে: জেলা প্রশাসক ড. বদিউল আলম

বশির আহমদ মোল্লা, নরসিংদী প্রতিনিধি

প্রবাসীদের বাংলাদেশের অর্থনীতির সবচেয়ে বড় চালিকাশক্তি উল্লেখ করে নরসিংদীর জেলা প্রশাসক ড. বদিউল আলম বলেছেন- অভিবাসনকে যেমন নিরাপদ করতে হবে তেমনি বিদেশ-ফেরত মানুষের পাশেও দাঁড়াতে হবে। বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাকের মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম এই কাজগুলো করার চেষ্টা করছে। সরকারের নানা দপ্তরেরও অনেক সেবা আছে। সরকার-বেসরকারি সংস্থা সবাই মিলে এই কাজগুলো এগিয়ে নিতে হবে।
আজ সোমবার (০৮ জুলাই ২০২৪), ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের উদ্যোগে নরসিংদীর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে নরসিংদী জেলা প্রশাসক ড. বদিউল আলম এসব কথা বলেন। জেলা প্রশাসক বলেন, ‘আমাদের প্রবাসীরা মধ্যপ্রাচ্যের যেসব দেশে থাকেন সেখানে তারা নাগরিকত্ব তো দূরের কথা স্থায়ীভাবে থাকারও অনুমতি পান না। তাদের সবাইকে দেশে ফিরতে হয়। কেউ অর্থ নিয়ে ফেরেন কেউবা বেদনা নিয়ে ফেরেন খালি হাতে। সব প্রবাসীদের টেকসই পুনরেকত্রীকরণ নিশ্চিত করতে আমাদের সমন্বয় করে কাজ করতে হবে।’ নরসিংদীতে বিদেশ-ফেরতদের জন্য ব্র্যাকের কাজের প্রশংসা করে তিনি আরও বলেন, ‘সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগের সমন্বয়ের মাধ্যমে আমরা নরসিংদীকে প্রবাসী বান্ধব জেলা হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।’
অনুষ্ঠানের সভাপতি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোবাশ্বের আলম আলম বলেন, ‘ব্র্যাক আমাদের রেমিট্যান্স যোদ্ধাদেরকে দেশে ফেরত আসার পরে সহযোগিতা করে সরকারের কাজ সহজ করছে। আমরা নানাভাবে তাদের পাশে থাকতে চাই। তবে বিদেশ যাওয়ার আগে আমাদেরকে দক্ষ হতে হবে।’
অনুষ্ঠানের মূল প্রবন্ধে ব্র্যাকের সহযোগী পরিচালক শরিফুল হাসান বলেন, ‘প্রবাসীদের অবদানে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তবে প্রবাসীরা শুধু টাকা পাঠানোর যন্ত্র না। তাদের বিপদে পাশে থাকতে হবে। এ কারণেই ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ব্র্যাকের যৌথ অর্থায়নে বিদেশ-ফেরতদের জন্য প্রত্যাশা-২ প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। সবাই মিলে আমাদের এই বিদেশ-ফেরত মানুষদের পাশে থাকতে হবে।’
অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফজল-ই-খুদা বলেন, ‘অদক্ষ ও অসচেতন মানুষই মানবপাচার বা অনিয়মিত অভিবাসনের শিকার হচ্ছেন। সমস্যা সমাধানে সবাইকে সচেতন হতে হবে।’
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে নরসিংদীর সিভিল সার্জন ডা. ফারহানা আহমেদ বলেন, ‘বিদেশ-ফেরতদের মধ্যে যারা ব্যর্থ হয়ে দেশে ফিরেছেন তাদেরকে আমরা দুর্বল মনে না করে তাদের পাশে দাঁড়ালে, তাদেরকে প্রশিক্ষণ দিলে তারা ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন। দেশে-প্রবাসে সবখানে আমাদের রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের পাশে থাকতে হবে।’
অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক মো: জামাল হোসেন, সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক মাসুদুল হাসান তাপস, নরসিংদীর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের অধ্যক্ষ নাবিলা নুঝাত, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের মো. মোখলেছুর রহমান ও জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিসের সহকারী পরিচালক মো: এনামুল হক।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ, জেলা প্রশাসককের কার্যালয়ের প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের সহকারী কমিশনার মেহেদী হাসান পাটোয়ারী, ব্র্যাক মাইগ্রেশন কর্মসূচির ম্যানেজার আতিকুর রহমান নাহিদ ও শেখ মোহাম্মদ সালেহ্ রাব্বী, ব্র্যাকের জেলা সমন্বয়কারী মোঃ মিজানুর রহমান, মাইগ্রেশন অ্যান্ড রিইন্ট্রিগ্রেশন সাপোর্ট সেন্টারসহ নরসিংদীতে কর্মরত ব্র্যাকের বিভিন্ন প্রোগ্রামের সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধিগণ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন নরসিংদী জেলার সরকারের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, এনজিও প্রতিনিধি, সাংবাদিক, শিক্ষক, ধর্মীয় ব্যাক্তিত্ব, প্রবাস বন্ধু ফোরাম সদস্য ও বিদেশ ফেরত অভিবাসী।
নরসিংদী বা দেশের যে কোন জেলায় বিদেশ থেকে ফিরে আসা মানুষ ব্র্যাকের প্রত্যাশা-২ প্রকল্প থেকে মনোসামাজিক কাউন্সেলিং, সামাজিক ও অর্থনৈতিক পুনরেকত্রীকরণে সহায়তা পাবেন। নরসিংদী জেলাপ্রশাসনসহ সরকারের নানা দপ্তরও তাদের পাশে দাঁড়ানোর প্রতিশ্রæতি দিয়েছে।
বিশ্বের সর্ববৃহৎ উন্নয়ন সংস্থা এবং সারাবিশ্বের শীর্ষস্থানীয় এনজিও- ব্র্যাক, ১৯৭২ সালের প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে দেশে ও দেশের বাইরে নানাবিধ কর্মসূচি বাস্তবায়নের মাধ্যমে মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। ব্র্যাকের বিভিন্ন কর্মসূচিগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটি কর্মসূচি হল মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম। ব্র্যাকের এই প্রোগ্রাম ২০০৬ সাল থেকে দেশের অভিবাসনপ্রবণ জেলাসমূহে বিদেশগামী নারী ও পুরুষের মাঝে সঠিক তথ্যের মাধ্যমে নিরাপদ অভিবাসন বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কার্যক্রম, বিদেশ-ফেরতদের পুনরেকত্রীকরণ, প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ, অভিবাসন খাতে অ্যাডভোকেসি ও নানাবিধ সহযোগিতামূলক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে আসছে। সঞ্চালনায় ছিলেন ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের এমআরএসসি কো-অডিনেটর মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন।

সর্বশেষ