Sunday, September 25, 2022
Homeজাতীয়আলোকিত প্রজন্ম তৈরির স্বপ্ন দেখতেন বঙ্গবন্ধু : ড.কলিমউল্লাহ

আলোকিত প্রজন্ম তৈরির স্বপ্ন দেখতেন বঙ্গবন্ধু : ড.কলিমউল্লাহ

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষ্যে জানিপপ কর্তৃক আয়োজিত জুম ওয়েবিনারে এক বিশেষ সেমিনারের ৪১৬তম পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।
জানিপপ-এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রফেসর ড.মেজর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ, বিএনসিসিও’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন, অস্ট্রেলিয়া থেকে ওয়েস্টার্ন সিডনি ইউনিভার্সিটির ফেলো ড. তানভীর ফিত্তীন আবির এবং গেস্ট অব অনার হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন,ইউএন ডিজএ্যাবিলিটি রাইটস চ্যাম্পিয়ন ও অনারারি প্রফেসর আব্দুস সাত্তার দুলাল, রংপুর মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আর্জিনা খানম,শিল্প উদ্যোক্তা তাসলিমা ফেরদৌস ও নারী উদ্যোক্তা আমাতুন নূর শিল্পী।
সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন, বগুড়া থেকে রুরাল ডেভেলাপমেন্ট একাডেমির ডেপুটি ডিরেক্টর ও পিএইচডি ফেলো মোঃ মাজহারুল আনোয়ার, ফারইস্ট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ফ্যাকাল্টি কাজী ফারজানা ইয়াসমিন, নীলফামারীর জলঢাকা থেকে পিএইচডি গবেষক ফাতিমা তুজ জোহরা এবং মুখ্য আলোচক হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন গোপালগঞ্জস্হ বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু ইনস্টিটিউট অব লিবারেশন ওয়ার এন্ড বাংলাদেশ স্টাডিজের অধীনে পিএইচডি গবেষণারত প্রশান্ত কুমার সরকার ।

সভাপতির বক্তৃতায় ড.কলিমউল্লাহ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আলোকিত প্রজন্ম তৈরির স্বপ্ন দেখতেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. তানভীর ফিত্তীন আবির বলেন,বাংলাদেশের একটি বড় অর্জন হলো শিক্ষায় কিছু দৃশ্যমান সাফল্য। এই অর্জন এখন সারা বিশ্বে স্বীকৃত। আফ্রিকা বা অনগ্রসর দেশগুলো যখন শিক্ষায় ছেলেমেয়ের সমতা অর্জনে হিমশিম খাচ্ছে, তখন বাংলাদেশ প্রাথমিক ও মাধ্যমিক দুই স্তরেই ছেলেমেয়ের সেই সমতা অর্জন করে ফেলেছে। তিনি আরো বলেন,এই তুষ্টিতে আমাদের থেমে থাকলে চলবে না।সারা বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের উচ্চ শিক্ষাকে এগিয়ে নিতে হবে। উচ্চশিক্ষায় শিক্ষকদের মানসম্মত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।
আব্দুস সাত্তার দুলাল বলেন, আমাদের দেশের রাজনীতিবিদরা নিন্দা ও নেতিবাচক দিক বেশি তুলে ধরছেন ।এটা কাম্য হতে পারে না। বঙ্গবন্ধু জাতি গঠনে ইতিবাচক ভূমিকা রেখে গেছেন। তিনি সব সময় ইতিবাচক রাজনীতির চর্চা করে গেছেন। আমাদেরকেও নৈতিক এবং ইতিবাচক রাজনীতি চর্চায় অভ্যস্ত হতে হবে।
তাসলিমা ফেরদৌস বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের জাতীয় আদর্শ ও ঐক্যের প্রতীক। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে সামনে রেখে যার যার অবস্থান থেকে আমাদেরকে দেশ গড়ার কাজে নিয়োজিত হতে হবে।

আমাতুন নূর বলেন, বঙ্গবন্ধু শিক্ষার মানোন্নয়নে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলেন।
প্রশান্ত কুমার সরকার বলেন, বঙ্গবন্ধু সব সময় শিক্ষাকে প্রাধান্য দিতেন । গবেষণা ও শিক্ষা খাতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু।
ফারহানা আকতার বলেন,”১৯৪৭ সালে দ্বিজাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে উপমহাদেশে ভারত-পাকিস্তান বিভাজনের পরেই পশ্চিম পাকিস্হান ‘উর্দুকে দুই পাকিস্হনের রাষ্ট্রভাষা করার ষড়য্ন্ত্রে লিপ্ত হয়’৷ তারই প্রতিবাদে বাংলাকেই পূর্ব পাকিস্হানের রাষ্ট্রভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার দাবীতে ‘সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদ’ এর পক্ষ থেকে সর্ব প্রথম বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয় কলকাতার সিরাজুদ্দৌলা হোটেলে।যেখানে উপস্হিত ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ।”
কাজী ফারজানা ইয়াসমিন বলেন,দেশের উন্নয়ন হচ্ছে সন্দেহ নেই। কিন্তু নৈতিক উন্নয়নের সূচক নিম্নগতির দিকে ধাবিত হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, টেকসই এবং কাঙ্খিত উন্নয়নে সরকারের ভূমিকার পাশাপাশি নাগরিকদেরও দায়িত্বশীল আচরণ করতে হবে।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য প্রদান করেন, আর্জিনা খানম,বগুড়া থেকে রুরাল ডেভেলপমেন্ট একাডেমির ডেপুটি ডিরেক্টর ও পিএইচডি গবেষক মো. মাজহারুল আনোয়ার, ফাতিমা-তুজ- জোহরা লিমা, লিও জান্নাতুল ফেরদৌস তিথি।

সেমিনারটি সঞ্চালনা করেন রয়েল ইউনিভার্সিটি অব ঢাকা’র সহযোগী অধ্যাপক,বিভাগীয় প্রধান ও ডেইলি প্রেসওয়াচ সম্পাদক দিপু সিদ্দিকী। সেমিনারে অন্যান্যদের মধ্যে সংযুক্ত ছিলেন, সিরাজগঞ্জ থেকে মিস হ্যাপি, রাজশাহী থেকে ডা. মাহবুবুল হক ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে বায়েজিদা ফারজানা।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular