Friday, January 28, 2022
Homeজাতীয়সকল ধর্মই সহিষ্ণুতা আর মানবিকতার শিক্ষা দেয় : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

সকল ধর্মই সহিষ্ণুতা আর মানবিকতার শিক্ষা দেয় : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

সকল ধর্মই সহিষ্ণুতা আর মানবিকতার শিক্ষা দেয় : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

 

ঝালকাঠি ১০ নভেম্বর, ২০২১:

 

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মোঃ ফরিদুল হক খান বলেছেন, কোনো ধর্মই হানাহানি ও হিংসার কথা বলে না। সকল ধর্মই সহিষ্ণুতা আর মানবিকতার শিক্ষা দেয়। কোনো ধার্মিক ব্যক্তি অন্য ধর্মের মানুষের অধিকার ক্ষুণ্ন করতে পারে না।

 

প্রতিমন্ত্রী আজ ঝালকাঠি জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে  ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ‘ধর্মীয় সম্প্রীতি ও  সচেতনতা বৃদ্ধিকরণ’ শীর্ষক ধর্মীয় সম্প্রীতি ও সচেতনতামূলক আন্তঃধর্মীয় সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সকলের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায় বাংলাদেশের ধর্মীয় সম্প্রীতি অক্ষুণ্ন রাখতে হবে। সাংবিধানিক দায়বদ্ধতা থেকেই দেশের প্রতিটি নাগরিককে এ দায়িত্ব পালন করতে হবে। তিনি বলেন, সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম  জনগণের ওপর আরো বেশি দায়িত্ব প্রতিবেশী  অন্য ধর্মের মানুষের অধিকার সমুন্নত রাখা। তাদেরকে নিরাপদ রাখার পরিবেশ তৈরি করে দেওয়া।

 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ঐতিহাসিক মদিনা সনদ, বিদায় হজের ভাষণ, মক্কা বিজয়ের ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় মহানবী (সা.) অন্য ধর্মের অনুসারীদের প্রতি  সদাচরণ করতেন। সকলকে নিয়েই তিনি সমাজ পরিচালনা করেছেন। যে রাজনৈতিক দর্শন  বঙ্গবন্ধু ধারণ করতেন। মুসলমানদেরকে মহানবী (সা.) এর জীবন থেকে প্রকৃত শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে।

 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা  যুদ্ধের  পরাজিত শক্তি, বঙ্গবন্ধুর হত্যার সাথে যারা জড়িত ছিল, দেশজুড়ে বোমা হামলাকারী সেই উগ্র সাম্প্রদায়িক শক্তি আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার পরিকল্পনা করছে। তাদের ইন্ধনেই দুষ্কৃতকারীরা হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি ঘর, মন্দির/ পূজামণ্ডপে হামলা চালিয়েছে। এই অপশক্তিকে আগামী দিনে জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন, জনগণ  ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিহত করবে।

 

ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক মোঃ জোহর আলীর সভাপতিত্বে সংলাপ অনুষ্ঠানে  আরো বক্তব্য রাখেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ মুনীম হাসান, ঝালকাঠির পুলিশ সুপার ফাতিহা ইয়াছমিন, ঝালকাঠি আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার মোহাম্মদ শাহ আলম এবং ইসলামিক ফাউণ্ডেশনের উপপরিচালক মশিউর রহমান।

 

প্রতিমন্ত্রী পরে কাউখালী শ্রীগুরু সংঘ কেন্দ্রীয় আশ্রম পরিদর্শন এবং এরপর কাউখালী উপজেলার পিজিএস উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ মাঠে  ইমাম, পুরোহিত, ধর্মীয় ও রাজনৈতিক  নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে আন্তঃধর্মীয় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments