‍ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় ভয়েস মেসেজের মাধ্যমে দ্রুত বন্যার আগাম পূর্বাভাস দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার : ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

0
36

ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় ভয়েস মেসেজের মাধ্যমে দ্রুত বন্যার আগাম পূর্বাভাস দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার : ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

 

ঢাকা, ৩০ অক্টোবর ২০২১ :

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা: মোঃ এনামুর রহমান বলেছেন,গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন এবং দরিদ্র জনগণের আয়ের সক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় ভয়েস মেসেজের মাধ্যমে দ্রুত বন্যার আগাম পূর্বাভাস দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার ।

জাতীয় পর্যায়ে সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বন্যার আগাম সতর্কীকরণ ব্যবস্থার উপর প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে যাতে আরো আধুনিক ও বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে বন্যার ঝুঁকি হ্রাসে কাজ করা যায়। জেলা, উপজেলা এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটিকে প্রশিক্ষণ ও কর্মশালার মাধ্যমে বন্যার আগাম সতর্কতা ও ঝুঁকি হ্রাসের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা হবে ।

এছাড়াও ইন্টিগ্রেটেড ওয়েব-মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন, ডিজিটাল ডিসপ্লে বোর্ডের মাধ্যমে তৎক্ষণাৎ বন্যার তথ্য ও পরামর্শ স্থানীয় পর্যায়ে সাধারণ জনগণের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে। প্রতিমন্ত্রী আজ ঢাকায় স্থানীয় একটি হোটেলে আয়োজিত”“স্থানীয় পর্যায়ে বন্যার আগাম সতর্কবার্তা ও প্রচার ব্যবস্থার উন্নয়ন” শীর্ষক প্রকল্পের প্রারম্ভিক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন ।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মোহসীন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আতিকুল হক ।

প্রতিমন্ত্রী তাঁর উত্তরবঙ্গের সাম্প্রতিক সফরে আকস্মিক বন্যার অভিজ্ঞতা কথা উল্লেখ করে মোবাইল এপ্লিকেশন এবং স্বয়ংক্রিয় প্রযুক্তির দ্বারা বন্যার আগাম সতর্কীকরণ বার্তা পৌছানোর ব্যবস্থাকে সময়োপযোগী বলে মন্তব্য করেছেন । সাধারন জনগণের কাছে বন্যার সতর্কবার্তা প্রচারে সহজ ও বোধগম্য ভাষায় প্রচারের উপরও তিনি গুরুত্বারোপ করেন ।

উল্লেখ্য,এই প্রকল্প উত্তরাঞ্চলের ৩টি বন্যাপ্রবণ জেলা কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা ও জামালপুরের ১৯টি উপজেলায় বাস্তবায়ন করা হবে । এই ১৯টি উপজেলার যে সকল ইউনিয়ন সবচেয়ে বেশি বন্যার ঝুঁকিতে বিশেষ করে কুড়িগ্রাম জেলার ব্রহ্মপুত্র, ধরলা ও দুধকুমার, গাইবান্ধা ও জামালপুর জেলার যমুনা ও বাঙালি নদীর তীরবর্তী এলাকা এই প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে ।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল আধিদপ্তর, আবহাওয়া অধিদপ্তর, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিভাগ, IWFM, IFAD সহ বিভিন্ন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধিগণ এই কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here