রিয়াজ মুন্না :

নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলায় হতদরিদ্র ও সুবিধা বঞ্চিত মানুষের মাঝে প্রফেসর কাজী নজরুল ইসলাম ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে নলকূপ ও ঈদবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। এসময় বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠান ও অসহায় পরিবারে ১২ টি টিউবয়েল ও ৫০ জন হতদরিদ্রকে ঈদ সামগ্রী প্রদান করা হয়।

বুধবার (১২ মে) বেলা দেড়টায় ফাউন্ডেশনের কার্যালয়ে  এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সহায়তা বিতরণ করা হয়।

লেবুতলা ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বাচ্চুর সঞ্চালনা ও প্রফেসর কাজী নজরুল ইসলাম বাদশা ফাউন্ডেশনের সভাপতি কাজী শরীফুল ইসলাম শাকিলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মনোহরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ এস এম কাসেম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মনোহরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিচুর রহমান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ এস এম কাসেম বলেন, মরহুম কাজী নজরুল ইসলাম সাহেব শিক্ষকতার পাশাপাশি একজন সমাজসেবক ছিলেন। তার স্মৃতি রক্ষণার্থে এ ফাউন্ডেশনটি স্থাপিত। দরিদ্রদের জন্য তারা যে মহৎ উদ্যোগ নিয়েছেন সেটি প্রশংসনীয়। দেশের গরীব ও দুঃস্থ জনগোষ্ঠীর সেবায় সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে আসলেই এ দেশ হবে মানবিক ও সুন্দর। তিনি এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে ফাউন্ডেশনের সমৃদ্ধি কামনা করেন।

বিশেষ অতিথি মনোহরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাআনিচুর রহমান বলেন, এসব সামাজিক কাজের মাধ্যমে সমাজ থেকে অন্যায়, জুলুম, অবিচার অনেক টাই কমে যাবে। তাই সমাজের বিত্তবানদের এসব কাজে বেশি করে এগিয়ে আসার আহবান জানান। এবং সুন্দর এই আয়োজনের জন্য কাজী নজরুল ইসলাম বাদশা ফাউন্ডেশন কে ধন্যবাদ জানান।

ফাউন্ডেশনের সভাপতি বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সমাজসেবক এ্যাডভোকেট কাজী শরীফুল ইসলাম শাকিল বলেন, ঈদ মানে খুশি। আর এ খুশিকে সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে প্রতিবছর সমাজের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য কিছু করতে চেষ্টা করি। এবছর ৫০ টি পরিবারের মাঝে ঈদবস্ত্র, ১২ টি নলকূপ ও নগদ টাকা বিতরণ করেছি। ইনশাআল্লাহ আগামীতে আরও বড় পরিসরে কিছু করব। এর মাধ্যমে আমি আমার বাবা-মায়ের শান্তি কামনা করছি।

২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিভিন্ন সময়ে দরিদ্রদের সহায়তা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও মসজিদ-মাদরাসার উন্নয়ন, কর্মসংস্থান সহ বিভিন্ন সামাজিক সেবামূলক কাজ করে আসছে কাজী নজরুল ইসলাম বাদশা ফাউন্ডেশন। গত ১ বছরে ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে উপজেলার বিভিন্ন মসজিদ ও মাদরাসায় একশত টিউবয়েল প্রদান করা হয়েছে । করোনা বিপর্যয়কালীন ত্রাণ ও সহায়তা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।