বাংলাদেশের অপহরণকৃত জাহাজ নিয়ে ভারতীয় নেভি ও গনমাধ্যমের মিথ্যাচার :

ভারতীয় নৌবাহিনীর সোমালিয়া বন্দরে জলদস্যুদের হাতে জিম্মি থাকা বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহকে ২৩ জন নাবিকসহ উদ্ধারের বিষয়ে ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর সঠিক নয় বলে দাবি করেছেন জাহাজ মালিক কর্তৃপক্ষ।

কেএসআরএম গ্রুপের মিডিয়া উপদেষ্টা মিজানুল ইসলাম বলেন, মিডিয়া কোথা থেকে এ খবর পেল তা আমি জানি না। তবে এটা মিথ্যা।

সোমালি জলদস্যুরা তীরে নিয়ে যাওয়ায় হাইজ্যাকড এমভি আবদুল্লাহর সাথে যোগাযোগের জন্য ভারতীয় নৌবাহিনীর প্রচেষ্টা

ছিনতাই করা জাহাজটি সোমালিয়ার উপকূল থেকে ৪ নটিক্যাল মাইল দূরে নোঙর করা হয়েছে। তিনি বলেন, “আজ (শনিবার) পর্যন্ত নাবিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়নি। জলদস্যুদের সঙ্গেও কথা হয়নি।”

বাংলাদেশ মার্চেন্ট মেরিন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন বলেন, “ছিনতাইকৃত জাহাজ উদ্ধার হয়েছে বলে যা লেখা হচ্ছে তা গুজব। আমি শুনেছি ১৪ই মার্চ উদ্ধারের চেষ্টা করেছিল। কিন্তু উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। ”

“এবং মিডিয়া হয়তো এই প্রচেষ্টাকে উদ্ধার হিসেবে প্রচার করছে,” তিনি যোগ করেছেন।

সোমালিয়ার হোবিও বন্দরে ছিনতাইকৃত পণ্যবাহী জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ নোঙর করেছে

শনিবার ইন্ডিয়া টুডে, দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসসহ কয়েকটি ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, হাইজ্যাক হওয়া বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহকে ভারতীয় নৌবাহিনী উদ্ধার করেছে। তবে সংবাদে এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলা হয়নি।

পরে জানা যায় যে ভারতীয় নৌবাহিনীর একটি মাল্টিজ পতাকাবাহী জিম্মি জাহাজ উদ্ধারের প্রচেষ্টাকে দেশটির মিডিয়া বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহর সাথে যুক্ত করেছে।

এ বিষয়ে জিম্মি নুরুদ্দিনের স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, এটা সত্য নয়। মিডিয়া কোথা থেকে এই ভুয়া খবর পেল তা বোধগম্য নয়।

সর্বশেষ