আগৈলঝাড়ায় একই পরিবার পেনশন, ভাতা, টিসিবি-ভিজিডি ও ডিলারশীপ সহ একাধিক সরকারী সুবিধা

অপূর্ব লাল সরকার, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) থেকে : বরিশালের আগৈলঝাড়ায় একটি পরিবার সরকারের পেনশন, প্রতিবন্ধী ভাতা, টিসিবি, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর কার্ড ও ডিলারশীপসহ অনৈতিকভাবে একাধিক সরকারী সুবিধা ভোগ করে আসছে। সরকারী সু্িবধাভোগী ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধেসরকারী জায়গা দখলসহ মন্দিরের টিন নিজের ঘরে ব্যবহারের অভিযোগও রয়েছে। এঘটনায় স্থানীয়রা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সমাজসেবা অধিদপ্তরসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।
অভিযোগসূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রতœপুর ইউনিয়নের মোল্লাপাড়া গ্রামের মুক্তেশ সরকারের ছেলে মনিশংকর সরকার প্রতিবন্ধী না হয়েও নিজের নাম ও ছেলে হিমেল সরকারের নামে রয়েছে প্রতিবন্ধী ভাতা। তার নিজ পরিবারে স্ত্রী হ্যাপী বাড়ৈ, মা শেফালী সরকার, ভাই মৃণাল কান্তি সরকারের নামে রয়েছে সরকারের নিত্যপণ্যের টিসিবি কার্ড। এছাড়াও ভাই মৃণাল কান্তি সরকার ও মা শেফালী সরকারের নামে রয়েছে সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর কার্ড। মনিশংকরের পিতা মুক্তেশ সরকার ছিলেন কৃষি অফিসের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা। তার মৃত্যুর পর স্ত্রী শেফালী সরকার পাচ্ছেন পেনশন। রতœপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের নির্দেশে মোল্লাপাড়া গ্রামের মন্মথ সরকারকে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ডিলার নিয়োগের সিদ্ধান্ত হলেও মনিশংকর প্রতারণা করে গোপনে নিজের নামে মোল্লাপাড়ার বাজারে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ডিলার হন। মনিশংকর মোল্লাপাড়া সার্বজনীন রাধাগোবিন্দ মন্দিরের টিন চুরি করে নিজের গোয়াল ঘরের চালে ব্যবহার করে স্থানীয়দের কাছে ধরা পরেন। পরে স্থানীয়দের শালিসের সিদ্ধান্ত মোতাবেক মনিশংকর মন্দিরে ৫ বান্ডিল ঢেউটিন কিনে দেন। এছাড়াও ছয়গ্রাম-বারপাইকা সড়কের মোল্লাপাড়া বাজারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সরকারী জায়গা দখল করে মনিশংকর একাধিক আধাপাকা দোকানঘর নির্মাণ করেছেন।
এবিষয়ে অভিযুক্ত মনিশংকর সরকার বলেন, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ডিলার নিয়ে বিরোধ থাকায় আমার প্রতিপক্ষরা মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে। আমার ভাই মৃণালের পরিবার পৃথক খায়। মন্দিরের পরিত্যক্ত টিন আমার বাবা গোয়াল ঘরে না জেনে লাগিয়েছিলেন। সেসময় আমি বাড়িতে ছিলাম না। আমার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ আংশিক সত্য।
এব্যাপারে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা সুশান্ত বালা বলেন, আমি মনিশংকরের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর পক্ষে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। রতœপুর ইউনিয়ন সমাজকর্মী আবু তাহের খোকা তালুকদারকে ৭দিনের মধ্যে সরেজমিনে তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

সর্বশেষ