জর্ডানের স্বপ্ন ভেঙ্গে আবারো এশিয়ার সেরা কাতার!

আকাশ দাশ সৈকত : প্রথমবারের মতো এএফসিএশিয়া কাপের ফাইনালে উঠা জর্ডানের স্বপ্ন ভেঙ্গে টানা দ্বিতীয়বারের মতো এশিয়াকাপের শিরোপা জিতলো কাতার। ঘরের মাঠে অনুষ্ঠিত ফাইনালে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা জিতে ৩-১ গোলের ব্যবধানে।

আজ কাতারের বিখ্যাত লুসাইল স্টেডিয়ামে সবাইকে চমক দিয়ে প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনাল নিশ্চিত করা জর্ডানের বিপক্ষে মাঠে নামে টুর্নামেন্টের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন স্বাগতিক কাতার। চেনা মাঠ আর চেনা কন্ডিশনে ম্যাচের শুরুতে খেলতে নেমে এইদিন র‍্যাঙ্কিংয়ে অনেক পিছিয়ে থাকা জর্ডানের বিপক্ষে তাদের লড়াই করতে হয়েছে সমানে সমানে। তবে ম্যাচের ২০ মিনিটের মাথায় নিজেদের ডি বক্সে জর্ডানের এক ফুটবলার ফাউল করতে পেনাল্টির বাঁশি বাজায় রেফারি আর সেখান থেকে জর্ডান গোলরক্ষক ইয়াজেদ আবদুল্লাহকে ফাঁকি দিয়ে বল জালে জড়াতে ভুল করেনি কাতারের স্ট্রাইকার আকরাম আফিফ। ম্যাচের শুরুতে গোল হজম করে একের পর এক আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে গোল করতে মরিয়া থাকলেও ম্যাচের প্রথমার্ধেই কাতার গোলরক্ষক মিসাল বরসাম আর ডিফেন্ডারদের কড়া পহারার সীমানা ভেদ করে বল জালে জড়াতে পারেনি জর্ডানে স্ট্রাইকাররা। ফলে ১-০ গোলে পিছিয়ে থেকে বিরতিতে যেতে হয় হুসাইন আমুতের শিষ্যদের।

বিরতি থেকে ফিরে এসে অবশ্য নিজেদের চেনা ছন্দে ফিরে জর্ডান। ম্যাচে ৬৭ মিনিটের মাথায় এসসান হাদাদের পা ছুয়ে আসা বল জালে জড়িয়ে জর্ডানকে সমতায় আনতে ভুল করেননি ইয়েজান আল নাইজাট। তবে জর্ডান সমর্থক‍দের সেই হাসি বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে দেননি আকরাম। ম্যাচের ৭৩ মিনিটের মাথায় আবারো পেনাল্টি থেকে গোল করে কাতারকে এগিয়ে দেন এই স্ট‍্রাইকার। পিছিয়ে পড়ে জর্ডান যখন সমতায় ফিরতে মরিয়া ঠিক তখনি ম্যাচের যোগ করা সময়ে গোলরক্ষক ফাউল করলে পেনাল্টি পায় কাতার। আগের দুই শটের মতো শেষ শটেও গোলাম করতে ভুল করেনি আকরাম। ফলে ৩-১ গোলে পিছিয়ে পড়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় জর্ডান। প্রথমবারের মতো এশিয়াকাপের ফাইনালে উঠলেও লিখতে পারেনি রুপকথার গল্প।

অন্যদিকে এই জয়ে জাপানের পর দ্বিতীয় হিসেবে টানা দ্বিতীয়বারের মতো এশিয়াকাপের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে কাতার। এরআগে ২০০৪ সালের জাপান টানা দুইবার এশিয়াকাপের চ্যাম্পিয়ন হয়।

সর্বশেষ