ময়মনসিংহ-কুমিল্লা সিটির ভোট ৯ মার্চ
ময়মনসিংহ সিটির সাধারণ নির্বাচন ও কুমিল্লা সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে উপনির্বাচন আগামী ৯ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে। আজ সোমবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনের নিজ কার্যালয়ে নির্বাচন কমিশনার মো. আনিছুর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।

কমিশনার আনিছুর রহমান বলেন, ‘ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে আগামী ৯ মার্চ সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ময়মনসিংহ সিটি নির্বাচনের নিয়মিত ভোট এবং কুমিল্লা সিটির মেয়র পদে উপনির্বাচনের ভোট অনুষ্ঠিত হবে।’

কয়েকটি পৌরসভা নির্বাচনের ভোটও একই দিনে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান এই কমিশনার।তিনি বলেন, ‘একইদিনে তিন-চারটা পৌরসভায় নির্বাচন হবে। পৌরসভাগুলোও ইভিএমে ভোটগ্রহণ হবে। এ ছাড়া উপজেলা, জেলা পরিষদে উপনির্বাচন হবে। এর বাইরেও মৃত্যুজনিত কারণে কিছু ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হবে। এই সবগুলো নির্বাচন একইদিনে অর্থাৎ ৯ মার্চ শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আনিছুর রহমান বলেন, ‘আনুষ্ঠানিক তফসিল ঘোষণার পর আরো বিস্তারিত জানা যাবে। আপাতত যা বলতে পারি, ইভিএমের মাধ্যমে পৌরসভা, জেলা পরিষদ এবং সিটি করপোরেশনের ভোটগ্রহণ করা হবে। বাকি নির্বাচনগুলো ব্যালট পেপারের মাধ্যমে করা হবে। ঈদের আগে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সম্ভাবনা নেই বলে জানান ইসি আনিছুর। তিনি বলেন, ‘আমরা এখনও পর্যালোচনা করছি এবং দেখছি। আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে এসএসসি পরীক্ষা শুরু হবে এবং ১২ মার্চে শেষ হবে। আবার ১০ বা ১১ মার্চ রোজা শুরু হবে। এইসব বিষয়গুলো বিবেচনা করতে হচ্ছে।উপজেলা পরিষদের প্রথম ধাপে যেই নির্বাচনগুলো করতে হবে, সেগুলো ৩০ এপ্রিলের মধ্যে কিছু হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘বাকিগুলো কয়েকটা ধাপে মে মাসে করা হবে। কারণ জুন মাসে আবার এইচএসসি পরীক্ষা। এজন্য আমরা এই সময়টাকে কাজে লাগাতে চাই। উপজেলার যেই তালিকগুলো আমরা পেয়েছি, সেগুলো যাচাই-বাছাই করছি। ঈদের আগে উপজেলা পরিষদের নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তবে ৩০ এপ্রিলের মধ্যেই কিছু সংখ্যক নির্বাচন করব। প্রায় ১০০ উপজেলার নির্বাচনের জন্য এই সপ্তাহেই সিদ্ধান্ত হতে পারে। জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনের নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সংরক্ষিত আসনের ভোট নিয়ে যাচাই-বাছাই হচ্ছে। সহসাই হয়ে যাবে। যেহেতু আইনের বাধ্যবাধকতা আছে যে, সংসদ নির্বাচনের এক মাসের মধ্যে করতে হয়।’

২০১৯ সালের ৫ মে ময়মনসিংহ সিটি নির্বাচনের প্রথম ভোট হয়েছিল। সেবার কেবল কাউন্সিলর পদে ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছিল। মেয়র নির্বাচিত হয়েছিল বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়। অপরদিকে গত ৩ ডিসেম্বর চিকিত্সাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র আরফানুল হক। বিধি অনুযায়ী ১১ মার্চের মধ্যে সেখানে উপনির্বাচনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

সূত্র: কালেরকন্ঠ

সর্বশেষ