বাগেরহাটে ৪টি আসনে নৌকা শক্ত অবস্থায়

এস. এম সাইফুল ইসলাম কবির,বিশেষ প্রতিনিধি :বাগেরহাটের চারটি সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা ভোটের মাঠে শক্ত অবস্থানে রয়েছেন। নির্বাচনে জয়-পরাজয়ে প্রার্থীর ভোটের ব্যবধান অনেক বেশি হবে; এমন আভাস ভোটের মাঠে। বাগেরহাটের চারটি সংসদীয় আসনে নৌকা প্রতীকের ব্যাপক প্রচার দেখা গেছে। জেলার বিভিন্ন এলাকায় আওয়ামী লীগের নির্বাচনী সভা-সমাবেশে নারী-পুরুষের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।

জেলার বিভিন্ন নির্বাচনী এলাকা সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, শহর থেকে শুরু করে গ্রামে, পাড়া মহল্লার অলিতে গলিতে মানুষের মধ্যে নির্বাচন ঘিরে চলছে আলোচনা। তবে কোনো কোনো ভোটার মনে করছেন, এই নির্বাচনে সকল দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত হলে নির্বাচনটি আরও জমে উঠত। তবে এবারের নির্বাচনে তরুণ ভোটারদের মধ্যে বেশি আগ্রহ লক্ষ করা গেছে। তারা প্রথম ভোট দিতে পারবে বলে, কোন প্রার্থীকে ভোট দেবে তা নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। তারা মনে করেন নির্বাচনে জয়-পরাজয়ে প্রার্থীর ভোটের ব্যবধান অনেক বেশি হবে; এমন আভাস তরুণসহ সাধারণ ভোটারদের। বাগেরহাটে মোট চারটি আসনের মধ্যে বাগেরহাট-৩ ও বাগেরহাট-৪ আসনে নৌকার সঙ্গে ঈগলের জমজমাট লড়াই হবে মনে করেন এই এলাকার ভোটাররা। তবে জয়ের ব্যাপারে সব প্রার্থীই আশাবাদী। এদিকে চারটি আসনে কয়েকজন প্রার্থীর জামানত হারানোর আশঙ্কাও রয়েছে। বাগেরহাটের চারটি আসন পর্যালোচনা করলে দেখা যায়-
নবম, দশম এবং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাগেরহাটের চারটি সংসদীয় আসন আওয়ামী লীগের দখলে রয়েছে। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাগেরহাটের চারটি আসনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এবং স্বতন্ত্র মিলে মোট ২৬ জন প্রার্থী লড়ছেন। এদিকে পোস্টারে ছেয়ে গেছে বিভিন্ন এলাকা। সভা-সমাবেশ ও গণসংযোগে ব্যস্তসময় পার করছেন প্রার্থীরা।
বাগেরহাট-১বাগেরহাট-১ এই আসনে মোট প্রার্থী ছয় জন। এই আসনে নৌকার প্রার্থী শেখ হেলাল উদ্দিন, বাংলাদেশ কংগ্রেসের প্রার্থী এইচ এম আতাউর রহমান, তৃণমূল বিএনপি প্রার্থী মো. মাহফুজুর, বিএনএম প্রার্থী মনজুর হোসেন শিকদার, লাঙলের প্রার্থী মো. কামরুজ্জামান, এনপিপির প্রার্থী বাসুদেব গুহ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।বাগেরহাট-১ আসনে মোট প্রার্থী ছয় জন। এই আসনে মোট ভোটার তিন লাখ ৫২ হাজার ৮২১ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ ৭৯ হাজার ৩৯৭, নারী ভোটার এক লাখ ৭৩ হাজার ৪২৩ এবং তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার একজন।
বাগেরহাট-২

বাগেরহাট-২ এ আসনে নৌকার প্রার্থী শেখ তন্ময়, লাঙলের প্রার্থী হাজরা শহিদুল ইসলাম বাবলু, স্বতন্ত্র প্রার্থী এসএম আজমল হোসেন, তৃণমূল বিএনপি প্রার্থী মরিয়ম সুলতানা, জাকের পার্টির প্রার্থী খান আরিফুর রহমান, বিএনএম প্রার্থী সোলায়মান শিকদার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।আসনে মোট প্রার্থী ছয় জন। এই আসনে মোট ভোটার তিন লাখ ২০ হাজার ১৪১ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ ৫৯ হাজার ৫০৭, নারী ভোটার এক লাখ ৬০ হাজার ৬৩২ এবং তৃতীয় লিঙ্গের দুই জন।
বাগেরহাট-৩

বাগেরহাট-৩ এ আসনে নৌকার প্রার্থী উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার, তৃণমূল বিএনপি প্রার্থী মেনোয়াল সরকার, জাসদ প্রার্থী শেখ নূরুজ্জামান মাসুম, জাপার প্রার্থী মো. মনিরুজ্জামান মনির, বাংলাদেশ কগ্রেসের প্রার্থী মফিজুল ইসলাম গাজী, বিএনএম প্রার্থী সুব্রত মণ্ডল, ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র বিদ্রোহী প্রার্থী মো. ইদ্রিস আলী ইজারাদার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।আসনে মোট প্রার্থী সাত জন। এই আসনে মোট ভোটার দুই লাখ ৫৪ ৮৫৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ ২৭ হাজার ১৩৭ জন, নারী ভোটার এক লাখ ২৭ ৭১৮ জন এবং তৃতীয় লিঙ্গের একজন।
বাগেরহাট-৪

বাগেরহাট-৪ এ আসনে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এইচএম বদিউজ্জামান সোহাগ, ঈগল প্রতীক নিয়ে জামিল হোসেন, নোঙর প্রতীক নিয়ে রেজাউর রহমান রাজুসহ আরও চারজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।মোট প্রার্থী সাত জন। এই আসনে মোট ভোটার তিন লাখ ৫৩ হাজার ৩১৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ ৭৮ হাজার ৪৫ জন, নারী ভোটার এক লাখ ৭৫ হাজার ২৬৭ জন এবং তৃতীয় লিঙ্গের দুই জন।

বাগেরহাট-১ আসনে নৌকার প্রার্থী বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুস্পুুত্র এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চাচাতো ভাই বর্তমান সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দীন, বাগেরহাট-২ আসনে নৌকার প্রার্থী শেখ হেলাল উদ্দীনের ছেলে বর্তমান সংসদ সদস্য শেখ তন্ময়, বাগেরহাট-৩ আসনে নৌকার প্রার্থী বর্তমান বন, পরিবেশ ও জলবায়ুবিয়ক মন্ত্রণালয়ের উপ-মন্ত্রী হাবিবুন নাহার এবং বাগেরহাট-৪ আসনে নৌকার প্রার্থী ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় কমিটির সাবেক সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ।

বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা শেখ কামরুজ্জামান টুকু বলেন, সারাদেশের মতো বাগেরহাটেও নানা ক্ষেত্রে উন্নয়ন হয়েছে। এলাকার মানুষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর খুশি। উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে মানুষ আবারো নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে বিজয়ী করবে।

তিনি বলেন বলেন, বাগেরহাটে আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ এবং যে কোনো সময়ের চেয়ে শক্তিশালী।

বাগেরহাট জেলা প্রশাসক ও রিটানিং অফিসার মোহা. খালিদ হোসেন জানান, জেলার চারটি সংসদীয় আসনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এবং স্বতন্ত্র হিসেবে ২৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরি মধ্যে সব ধরণের প্রস্ততি সম্পন্ন করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মাঠে তদারকি করছেন। চারটি আসনেই আইনশৃংখলা পরিস্থিতি ভাল রয়েছে। এখনও পর্যন্ত কোথাও অপ্রিতকর ঘটনা ঘটেনি। কোনো ধরণের অভিযোগ পেলেই সাথে সাথে যাচাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। বাগেরহাটে শান্তিপূর্ণ অবস্থা বিরাজ করছে। বাগেরহাটের চারটি আসনেই শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখোর পরিবেশে সুষ্ঠভাবে এবং সুন্দরভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে তিনি আশাবাদি। সাত জানুয়ারি ভোটারদের কেন্দ্রে গিয়ে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগরে আহবান জানান রিটানিং অফিসার।

বাগেরহাটের পুলিশ সুপার আবুল হাসনাত খান বলেন, বাগেরহাটের সর্বত্রই শান্তিপূর্ণ অবস্থা বিরাজ করছে। নির্বাচনে আইনশৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখার জন্য পুলিশ কাজ করছে। বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের পর্যাপ্ত সংখ্যক ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি বিভিন্ন আইনশৃংখলা রক্ষাকারি বাহিনীর সদস্যরা মাঠে কাজ করছে। শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোটাররা যাতে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে এজন্য আইনশৃংখলাপরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সব ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে পুলিশ সুপার জানান।*

সর্বশেষ