ফের রের্কড গড়লেন শাম্মী সুলতানা

স্টাফ রিপোর্টার:

আবারো ৩টা জাতীয় রের্কড করে সেরা খেলোয়াড় হলেন শাম্মী সুলতানা। বালিকা বিভাগে ৫৯ কেজিতে প্রথম হওয়া শাম্মী সুলতানাকে পদক পরিয়ে দেন তার নানী রিজিয়া বেগম।
ভারত্তোলন ফেডারেশনের ছোট্ট জিমনেশিয়ামে বঙ্গবন্ধু ৩য় ইয়ুথ (অনুর্ধ্ব-১৭) জাতীয় চ্যাম্পিয়নশীপে পুরস্কার প্রদান মঞ্চে এ যেন এক নতুনত্বের ছোঁয়া । জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত সাবেক ভারত্তোলক ও কোচ শাহরিয়া সুলতানা, যিনি শাম্মী সুলতানার মা, তিনিও পাশে ছিলেন ।

শাম্মী সুলতানার নানী বলেন, ছোটবেলা থেকে আমার সন্তানেরা খেলাধুলা করে। তাদের খেলাধূলা করার পেছনে সবচেয়ে বেশি অবদান ছিল তাদের বাবার। আজ যদি তিনি বেচেঁ থাকতেন আর দেখে যেতেন তার সন্তান জাতীয় পুরস্কার পেয়েছে এবং তারই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে চলছে তার নাতনী শাম্মী সুলতানা। তাঁর থেকে খুশি বোধহয় কেউ হতোনা। তাদের সাথে ছিল শাম্মীর খালাতো বোন। সে বলে আমি তো আমার শাম্মী আপার সাফল্যে খুবই খুশি ও তাকে নিয়ে গর্বিত। আমিও শাম্মী আপার মতো খেলতে চাই।

ভারত্তোলন অঙ্গনে অত্যন্ত পরিচিত মুখ শাহরিয়া সুলতানা। তারকা ভারত্তোলকের মেয়ে শাম্মীও দ্যুতি ছড়াচ্ছেন ভারত্তোলনে। জুনিয়র প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছেন কয়েকবার। চলমান ইয়ুথ প্রতিযোগিতায় নারী বিভাগে সেরা ভারত্তোলকের পুরস্কারও পেয়েছেন। তার সেরা হওয়ার কারণ স্ন্যাচ এবং ক্লিন-জার্ক মিলিয়ে মোট তিনটিতেই রেকর্ড।

 

কয়েক মাস আগে বাগেরহাটে ১২তম নারী জাতীয় ক্লাব ভারত্তোলন প্রতিযোগিতায় সেরা নারী ভারত্তোলক হয়েছেন শাম্মী সুলতানা। ৫৯ কেজি ওজন শ্রেণীতে স্ন্যাচ এবং ক্লিন-জার্ক মিলিয়ে ১২৯ কেজি তুলে রেকর্ড গড়ে প্রথম হয়েছেন। স্ন্যাচে ৫৯, ক্লিন এন্ড জার্কে ৭০ তুলেও রেকর্ড ভেঙেছেন। পারফরম্যান্স, শরীরের ওজন সামগ্রিক বিষয় মিলিয়ে শাম্মী সেরা নারী ভারত্তোলকের স্বীকৃতি পেয়েছেন।

শাম্মী বলেন, জন্মের পর থেকে খেলা দেখতে দেখতে আমার বেড়ে উঠা। তাই আমার স্বপ্নও খানিকটা বেশি। যখন থেকে একটু বুঝতে শিখেছি তখন থেকেই আমি অলিম্পিকে পদক পাওয়ার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছি। আপনাদের মাধ্যমে দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই। আমি যেন একদিন অলিম্পিকে পদক পেয়ে দেশের সুনাম বয়ে আনতে পারি।

 

শাহরিয়া সুলতানা বলেন, শাম্মী দিনেদিনে উন্নতি করছে , তবে কোচের দৃষ্টিকোণ থেকে বলতে চাই তার এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হলে তাকে আরও হার্ডওয়ার্ক করতে হবে। তার এই সাফল্যে মা হিসেবে খুবই গর্বিত। সামনের পথ অনেক কঠিন তাই মেয়েকে সেভাবেই প্রস্তুত করতে চান, ‘আগামী মার্চে সিনিয়র জাতীয় প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে। ঐ প্রতিযোগিতায় ভালো কিছু করতে হলে তাকে সেভাবেই প্রস্তুত হতে হবে। ভালো পারফরম্যান্স ধারাবাহিকতা বজায় রাখাই বড় চ্যালেঞ্জ। ’

সর্বশেষ