পুলিশের ধাওয়া খেয়ে ট্রেনে কাটা পড়লেন পরিতোষ চক্রবর্তী

এম এইচ শাহীন, স্টাফ রিপোর্টার। গাজীপুরের ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলপথের জয়দেবপুর জংশন এলাকায় পুলিশের ধাওয়া খেয়ে ট্রেনে কাটা পড়লেন লেবু বিক্রেতা পরিতোষ চক্রবর্তী। মঙ্গলবার (৯ জানুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে জয়দেবপুর জংশন এলাকায় পুলিশের ধাওয়া খেয়ে দিনাজপুরগামী একতা এক্সপ্রেস ট্রেনে কাটা পড়ে এ ঘটনা ঘটে। আহত লেবু বিক্রেতা পরিতোষ চক্রবর্তী (৪৫) নওগাঁ জেলার নওগাঁদা গ্রামের আত্রাই থানার বাসিন্দা। প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে জানা যায়, পরিতোষ জয়দেবপুর রেলাইনের পাশে নিয়মিত অনেকের মত হকারি করে লেবু বিক্রি করতেন। প্রতিদিনের ন্যায় মঙ্গলবার ওই স্থানের লেবু বিক্রির উদ্দেশ্যে যায়। পরে দুপুর ১২টার দিকে সে তার লেবু গুলো বিক্রির উদ্দেশ্যে পলিথিনে ভরছিল। এসময় পুলিশ এসে তাকে পায়ে লাঠির আঘাত করে।

এসময় পরিতোষ আত্মরক্ষার্থে ওইখান থেকে সরে যাওয়ার চেষ্টাকালে পরে যায়। ওই সময় পুলিশ তাকে লাথি মারলে সে রেললাইনের উপরে পরে যায়।তাৎক্ষনিক একটি ট্রেন পরিতোষের বা পায়ের উপর দিয়ে গেলে তার পা’টা কেটে যায়। পরিতোষের শাশুড়ি জানান, পরিতোষ রেললাইনের ফুটপাতে লেবু বিক্রি করেন। পরিতোষ রেলগেটে লেবু পলিথিনে ভরে প্যাকেট করছিলেন। হঠাৎ গাজীপুর মেট্রোপলিটন সদর থানার এক পুলিশ গিয়ে তাকে পেটাতে শুরু করে। পরে সে দৌড় দিতে গিয়ে সে ট্রেনের নিচে পা’টা পড়ে যায়। তবে ধারনা করা হচ্ছে পরিতোষ বেঁচে গেলেও তার পা’টি রাখা যাবে না।

জয়দেবপুর জংশন রেলওয়ে পুলিশের এসআই শহিদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, পুলিশ দেখে দৌড়ে পালাতে গিয়ে এক লেবু ব্যবসায়ী দিনাজপুরগামী একতা এক্সপ্রেস ট্রেনে কাটা পড়ে গুরুত্বর আহত হন। আহত অবস্থায় পরিতোষ নামে ওই ব্যাক্তিকে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে ওই হাপাতালের চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে পাঠায়। গাজীপুর মেট্রোপলিটন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ রাফিউর ইসলাম জানান, রেললাইনে উচ্ছেদ অভিযান চলমান প্রক্রিয়া। সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআাই) জহির রেলক্রসিংয়ে ডিউটিতে ছিলেন। পুলিশ দেখে অনেকেই পালানোর চেষ্টা করতে পারেন। পুলিশের ধাওয়া দেওয়ার বিষয়টি সঠিক নয়।

সর্বশেষ