নতুন ভোটারদের নৌকায় ভোট দেওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

এখানে শেখ লুৎফর রহমান কলেজ মাঠে আয়োজিত আরেকটি মহাসমাবেশে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নতুন ভোটার ও তরুণদের তার দলের নির্বাচনী প্রতীক নৌকায় ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান।
তিনি বলেন, “যারা যুবসমাজ ও তরুণ সমাজ এবং প্রথমবার যারা ভোটার হবেন শুধু কোটালীপাড়া টুঙ্গিপাড়া নয় সারা বাংলাদেশের জন্য আমার আহ্বান-নতুন ভোটাররা নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে সরকার গঠন করার সুযোগ করে দিয়ে বাংলাদেশ যেভাবে উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে সেই উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাওয়ায় তাদের সাহায্য করতে হবে।”
তিনি বলেন, “তারুণ্যের শক্তি বাংলাদেশের অগ্রগতি। সেটাই আমরা বিশ্বাস করি।”
আধুনিক প্রযুক্তিগত শিক্ষায় শিক্ষিত করে তরুণ প্রজন্মকে স্মার্ট ও দক্ষ জনশক্তি হিসেবে তার সরকার গড়ে তুলবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সরকার, আমাদের অর্থনীতি এবং আমাদের সমাজ ব্যবস্থাও স্মার্ট করে গড়ে তোলা হবে। যেন এই বাংলাদেশ শিক্ষা-দীক্ষা জ্ঞানে-বিজ্ঞানে এবং প্রযুক্তিতে উন্নত সমৃদ্ধ জাতি হিসেবে মাথা উঁচু করে চলতে পারে। কারো কাছে মাথা নত করে নয়।
শেখ হাসিনা বলেন, আজকে অত্যন্ত দুর্ভাগ্যের বিষয় বিএনপি-জামাত জোট মিলে অগ্নিসন্ত্রাস ও মানুষ হত্যা শুরু করেছে। রেলের বগিতে আগুন দিয়ে মা ও শিশুকে পুড়িয়ে মারে। রাস্তাঘাটে যেখানে সেখানে আগুন দেয় বাসে আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করে-এই দুর্বৃত্ত পরায়ণতা আমাদের বন্ধ করতে হবে।
“যে যেখানে আছেন ওই আগুন যারা দেয় বা মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করে, নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র যারা করে ওদেরকে ধরিয়ে দিন, উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করে দিন, সেটাই আমি আহ্বান জানাবো,” বলেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই বাংলাদেশটা উন্নত ও সমৃদ্ধ হবে সেটাই আমাদের লক্ষ্য। সেজন্যই আমরা দিনরাত কাজ করে যাচ্ছি। আর এই সুযোগটা আপনারাই দিয়েছেন, কারণ, নৌকা মার্কায় আমাকে ভোট দিয়ে বারবার নির্বাচিত করেছেন।
তিনি বলেন, আমি জানি আমাদের অন্যান্য এমপিদের নিজের এলাকা নিয়েই পড়ে থাকতে হয় কিন্তু আমার তো এলাকা ৩শ’টা। এই ৩শ’ এলাকাই আমাকে দেখতে হয়। আমি দেখতে পারি কারণ, আমার দায়িত্ব তো আপনারাই নিয়েছেন। আমার নির্বাচন তো আপনারাই করে দেন সবাই মিলে। সেদিক থেকে আমি সবথেকে সৌভাগ্যবান। আমি আজকে সেজন্য আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।
তিনি বলেন, আমাদের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি থেকে শুরু করে যে সমস্ত সুযোগ-সুবিধা আমরা দিয়েছি সেগুলো অব্যাহত রেখেই আমরা আমাদের কাজ করে যাচ্ছি এবং কাজ করে যাব।
তার সরকারের দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচির প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, দেশে দারিদ্র্যের হার আমরা অর্ধেকের বেশি কমিয়ে এনেছি। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে আরো কমানো। হতদরিদ্র এদেশে আর কেউ থাকবে না। যেটুকু আছে এখন ৫.৬ শতাংশ, ইনশাআল্লাহ আগামী বার নির্বাচিত হয়ে আসতে পারলে এবং জনগণের সেবা করার সুযোগ পেলে হত দরিদ্র বলে আর কেউ থাকবে না। একেবারে নি¤œ সম্প্রদায় থেকে শুরু করে প্রত্যেকেরই থাকা খাওয়া জীবন জীবিকার ব্যবস্থা আমরা করে দেব।
আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, এই বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ। মুসলমান, হিন্দু, খ্রিস্টান, বৌদ্ধ- সকল ধর্মের মানুষ তার সমান অধিকার নিয়ে যার যার ধর্ম সে সে পালন করবে, সেটাই আমরা নিশ্চিত করেছি এবং সেটাই নিশ্চিত থাকবে।
তিনি বলেন, জনগণের অধিকার নির্বাচনের অধিকার। ভোটের অধিকার। ‘আমার ভোট আমি দেব যাকে খুশি তাকে দেব,’ এই স্লোগান দিয়ে আন্দোলন সংগ্রাম করেছি। আজকে ভোট ও ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছি জনগণের ভোটের অধিকার নিশ্চিত করেছি।
এ দেশকে নিয়ে, জনগণের ভাগ্য নিয়ে আর কেউ যেন ছিনিমিনি খেলতে না পারে, সেজন্য সবাইকে সজাগ থাকার আমি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।
দেশি-বিদেশি চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে পদ্মা সেতু নির্মাণের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, আমাদের অপবাদ দিতে চেয়েছিল মিথ্যা দুর্নীতির অপবাদ। আমরা চ্যালেঞ্জ দিয়েছিলাম যে দুর্নীতি কোথায় হয়েছে সেটা প্রমাণ কর। বিশ্ব ব্যাংক সে দুর্নীতি প্রমাণ করতে পারে নাই। কারণ, কোন দুর্নীতি এখানে হয় নাই। কানাডার ফেডারেল আদালতেও এটা প্রমাণিত হয়েছে।
আমরা নিজেদের অর্থে পদ্মা সেতু নির্মাণ করে বিশ্বকে দেখিয়ে দিয়েছি বাংলাদেশকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না, পারে নাই। জাতির পিতার ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণেও এ কথার উল্লেখ ছিল ‘বাঙালিকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারবা না’ এবং পারেনি।
তিনি বলেন নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র যারা করছে তাদেরও একদিন উপযুক্ত শাস্তি পেতে হবে। তারাও শাস্তি পাবে একদিন। আর আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কেউ যদি নাক গলাতে আসে আমরা সেটা মেনে নেব না, বাংলাদেশ কখনো মানে নাই। মুক্তিযুদ্ধের সময় পারে নাই, মুক্তিযুদ্ধে বিজয় আমরা অর্জন করেছি। আজকে অর্থনীতির বিজয় ইনশাল্লাহ সেটাও আমরা একদিন অর্জন করে তাদের দেখাবো যে আমরা পারি। অন্তত দরিদ্রের হার ওই সব বড়লোকদের দেশ থেকে আরো কমিয়ে আমরা আরও উচ্চ মর্যাদায় ইনশাল্লাহ নিয়ে যাবো।
কোটালীপাড়া-টুঙ্গিপাড়াবাসবাসীর কাছে তাঁর কোন দিন ভোট চাইতে হয়নি, উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি প্রার্থী হিসেবে আপনাদের কাছে এসেছি আপনারা আমাকে নৌকা মার্কায় ভোট দেবেন। আমি সেটাই আপনাদের কাছে আবেদন করছি।
তিনি বলেন, বাবা-মা ভাই সব হারিয়েছি আজকে আপনাদের মাঝে হারানো বাবার স্নেহ হারানো মায়ের স্নেহ হারানো ভাইয়ের স্নেহ পেয়েছি। সেটাই আমার চলার পথের পাথেয়। আপনাদের ভালোবাসা ও সহযোগিতায় এটাই আমার চলার পথের একমাত্র শক্তি।
সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নগেন্দ্রনাথ বিশ্বাস।

মাদারীপুরের কালকিনিতে সৈয়দ আবুল হোসেন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত আরেকটি মহাসমাবেশে শেখ হাসিনা তাঁর দলের নির্বাচনী প্রতীক নৌকায় ভোট চেয়ে বলেছেন, একমাত্র নৌকাই পারে দেশের উন্নয়ন নিশ্চিত করতে।
তিনি বলেন, “আমি নৌকায় ভোট চাই, কারণ, এটিই একমাত্র দেশের উন্নয়ন নিশ্চিত করতে পারে। নৌকাই দেশের উন্নয়নের একমাত্র হাতিয়ার।”
কোটালীপাড়ার সমাবেশের মতো তিনি নতুন ভোটারদের কাছেও নৌকার পক্ষে ভোট চেয়ে বলেন, তার সরকার তরুণ প্রজন্মকে কম্পিউটার ও আইসিটির যথাযথ প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ কর্মী হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছে। যাতে তারা বিশ্বের সাথে প্রতিযোগিতা করতে পারে।
প্রধানমন্ত্রী তাঁর ছোট বোন শেখ রেহানাকে নিয়ে বিকেল সাড়ে ৩টায় সমবেশস্থলে এসে পৌঁছান, যা ততক্ষণে মানব সমুদ্রে পরিণত হয়।
অওয়ামী লীগ সভাপতি মাদারীপুরের তিন আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে জনগণের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন এবং নৌকার পক্ষে ভোট চান।
তিনি ভোটারদের সকাল সকাল ভোট কেন্দ্রে গিয়ে স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে বলেন।
আওয়ামী লীগ প্রধান সতর্ক করে দিয়ে বলেন, সন্ত্রাসী রাজনৈতিক দল বিএনপি ও যুদ্ধাপরাধী সংগঠন জামায়াত আগামী সাধারণ নির্বাচন বানচাল করতে চায়।
বাংলাদেশের সামগ্রিক আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন এবং জনগণকে সুন্দর ও নিরাপদ জীবন প্রদান নিশ্চিত করতে তাঁর সরকারের পদক্ষেপের সংক্ষিপ্ত বর্ণনা তুলে ধরেন তিনি।
তিনি বলেন, “আন্তর্জাতিক ভাবেও কেউ কেউ ষড়যন্ত্রে জড়িত। তারা বাংলাদেশের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে চায়। আমরা তা হতে দেব না।”
তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের রাজনীতি করার কোনো অধিকার নেই, তারা দেশের জন্য কিছুই করেনি।
জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া ও তারেক জিয়াকে খুনি আখ্যা দিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, তারা শুধু মানুষ হত্যা ও সম্পদ ধ্বংস করতে জানে।
“তারা কখনো মানুষকে মানুষ বলে মনে করে না। সন্ত্রাসী ও যুদ্ধাপরাধী, বিএনপি ও জামায়াতের রাজনীতি করার কি অধিকার আছে?” সে প্রশ্নও তোলেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী সাবেক স্থানীয় সংসদ সদস্য ও যোগাযোগমন্ত্রী প্রয়াত সৈয়দ আবুল হোসেনকে পদ্মা সেতু নির্মাণে অবদানের জন্য শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন।

তিনি বলেন, মিথ্যা দুর্নীতির অভিযোগের প্রতিবাদে তাঁর সরকার নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করেছে । বিশ^ ব্যাংকের দুর্নীতির ভূয়া অভিযোগ পরবর্তীতে কানাডার ফেডারেল কোর্টেও মিথ্যা বলে প্রমাণিত হয়েছে।
কোন নাম উল্লেখ না করে, নিয়ম বহির্ভূতভাবে ব্যাংকের এমডি’র পদ ধরে রাখার জন্য এক ব্যক্তি এই সকল ষড়যন্ত্রের নেপথ্যে ছিলেন বলেও তিনি উল্লেখ করেন।
সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য শাহজাহান খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ প্রমুখ।
সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন কালকিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ।

সর্বশেষ