সরকারি হিসাবেই ২৬ লাখ বই সরবরাহ হয়নি

চলতি শিক্ষাবর্ষের দেড় মাস ইতোমধ্যে পার হয়েছে। কিন্তু জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) হিসাবেই এখনো ২৬ লাখ বই পাঠানো সম্ভব হয়নি।যদিও মুদ্রাকররা বলছেন, অন্তত ১ কোটি বই সরবরাহ হয়নি। সরবরাহ না হওয়া বইয়ের সবই মাধ্যমিক স্তরের। যার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির। বইগুলো আটকে আছে ৭-৮টি প্রতিষ্ঠানের কাছে।

শিক্ষক ও অভিভাবকরা বলছেন, শিক্ষার্থীদের হাতে সব বই দিতে না পারায় পাঠদানে বিঘ্ন ঘটছে। আর এই সুযোগ কাজে লাগাচ্ছেন একশ্রেণির অসৎ ব্যবসায়ী। ঢাকার বাংলাবাজারে পোস্ট অফিসের সামনে, নীলক্ষেত, ভিকারুননিসা-আইডিয়ালসহ রাজধানীর বিভিন্ন বড় স্কুলের আশপাশে বইয়ের দোকানে বিক্রি হচ্ছে বিনামূল্যের পাঠ্যবই। ঢাকার বাইরে থেকেও এসব বই বিক্রির খবর পাওয়া যাচ্ছে।

এদিকে বিতর্কের মুখে ১০ ফেব্রুয়ারি ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির দুটি বই বাতিল করা হয়েছে। এ কারণে অন্তত সাড়ে ৪৩ কোটি টাকা গচ্চা যাচ্ছে। একই বিষয়ের আরও দুটি বই সংশোধনের কাজ চলছে। যদি অল্প সংশোধনী আসে, তাহলে কেবল ‘ডিউ পার্ট’ পাঠালেই চলবে। আর আমূল পরিবর্তনের সুপারিশ এলে বই দুটি পুনরায় মুদ্রণ করতে হবে।

এসব বিবেচনায় নিয়ে আরও ৫ থেকে ২৩ কোটি টাকা খরচ হতে পারে। গচ্চা যাওয়ার হিসাব এখানেই শেষ নয়। উল্লিখিত বইগুলো লেখার জন্য লেখকদের সম্মানিসহ অন্যান্য খরচ আছে। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) প্রায় ৩০০ কোটি টাকা ব্যয়ে একাধিক দফায় শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দিয়েছে।

সবমিলে বই বাতিলে গচ্চা অন্তত ৩৫০ কোটি টাকা বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। কিন্তু যার বা যাদের কারণে কঠিন অর্থনৈতিক সমস্যার এই সময়ে এমন গচ্চা গেছে, তারা এনসিটিবিতে এখনো বহাল তবিয়তে আছেন।এসব বিষয়ে জানতে চাইলে এনসিটিবি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ফরহাদুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, যে পরিমাণ বই সরবরাহ বাকি আছে, এর সংখ্যা খুবই নগণ্য। কিছুতেই তা ২৬ লাখ বা ১ কোটি হওয়ার কথা নয়। বাতিল হওয়া বইয়ের পেছনে কত টাকা খরচ হয়েছে, সেই হিসাব এখনো করা হয়নি। তবে বই বাতিলে কেবল মুদ্রণ খরচ নয়, লেখক সম্মানি এবং প্রশিক্ষণ ব্যয় যোগ করা যেতেই পারে।

এনসিটিবি সূত্র জানায়, যে ২৬ লাখ বই এখনো আটকে আছে, এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আছে বর্ণশোভার কাছে-১০ লাখ। এই প্রতিষ্ঠানটি বইয়ের কাজ নিয়ে ব্যাংক থেকে টাকা নিতে পারেনি। ফলে তারা মুদ্রণকাজ শুরু করতে পারেনি। কিন্তু আগেভাগে এনসিটিবি এদিকে নজর দেয়নি।

সর্বশেষ সংস্থাটির চেয়ারম্যানের ব্যক্তিগত উদ্যোগে ব্রাইট প্রিন্টার্সের স্বত্বাধিকারী মো. মহসিন বই মুদ্রণ শেষ করে দেওয়ার দায়িত্ব নেন। পরে মহসিন একটি ব্যাংকের সঙ্গে সমঝোতা করে ঋণের ব্যবস্থা করে দেন। জানা যায়, এছাড়া ভয়েজার পাবলিকেশনের কাছে ৮ লাখ, আল আমিনের কাছে প্রায় ২ লাখ এবং মানামার কাছে ৫ লাখ বই আটকে আছে।

এছাড়া সরকার, দশদিশা, এসআর, অ্যাপেক্স, অনুপমসহ আরও কয়েকটির কাছে বই আটকে আছে। বারোতোপা নামের প্রতিষ্ঠানটি গত সপ্তাহে সরবরাহ শেষ করেছে। এর চেয়ে উদ্বেগের বিষয় হচ্ছে, শেষ মুহূর্তে সরবরাহ করা বইয়ের মান তেমন একটা যাচাই করা হয়নি বলে অভিযোগ এসেছে।

মুদ্রণ শিল্প সমিতির সাধারণ সম্পাদক অবশ্য দাবি করেন, এখনো বই সরবরাহ না করার সংখ্যা অন্তত ১ কোটি। ছোটখাটো যেসব প্রতিষ্ঠানের কাছে ২-৪ লাখ করে আটকা আছে, এনসিটিবি কেবল সেগুলোর নাম প্রকাশ করছে। কিন্তু বড় আরও ২-৩টি প্রতিষ্ঠানের কাছে বই আটকে আছে। ওইসব প্রতিষ্ঠান মন্ত্রণালয়সহ সমাজের আরও কয়েক প্রভাবশালী মহলের প্রশ্রয় পাচ্ছে কিংবা তাদের নাম ভাঙাচ্ছে। এ কারণে ওইসব প্রতিষ্ঠানের নাম এনসিটিবি প্রকাশে সাহস করছে না।

ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে নাম প্রকাশ না করে শিক্ষা কর্মকর্তারা বলছেন, বই সরবরাহের ক্ষেত্রে দুই ধরনের সমস্যা আছে। একটি হচ্ছে, একবার এসে বই না পেয়ে ফিরে যাওয়ায় কিছু প্রতিষ্ঠানকে পরে ডাকলেও বই নিতে আসতে বিলম্ব করছে। ফলে ওইসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বই ছাড়াই ক্লাস করছে। আরেকটি দিক হচ্ছে, কিছু মুদ্রণ প্রতিষ্ঠান ষষ্ঠ-সপ্তম শ্রেণির বই মুদ্রণে বিলম্ব করছে।

গচ্চা অন্তত ২৩ কোটি টাকা : ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান বিষয়ের ‘অনুসন্ধানী পাঠ’ নামের বই দুটি প্রত্যাহার করা হয়েছে। একই বিষয়ের ‘অনুশীলনী পাঠ’ শীর্ষক বই দুটি সংশোধন সাপেক্ষে পড়ানো হবে। এছাড়া সংশোধন করা হবে ষষ্ঠ শ্রেণির বিজ্ঞানের ‘অনুসন্ধানী পাঠ’ বইটি। এর মধ্যে ষষ্ঠ শ্রেণির জন্য এবার ৩৫ আর সপ্তম শ্রেণির জন্য ৩০ লাখ বই ছাপানো হয়েছে।

এবার প্রতিটি বইয়ের প্রতি ফর্মার দাম পড়েছে ২ টাকা ২২ পয়সা। প্রথম বইটি ১৫ আর পরেরটি সাড়ে ১৭ ফর্মা। এই হিসাবে বাতিল হওয়ায় উভয় বইয়ের পেছনে খরচ হয়েছে ২৩ কোটি ৩১ লাখ টাকা। এনসিটিবির কর্মকর্তারা বলছেন, উভয় বই লেখার জন্য আরও ১০ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। আবার নতুন করে লেখার কারণে সমপরিমাণ টাকা খরচ হবে। এই হিসাবে ৪৩ কোটি টাকা গচ্চা হবে বই বাতিলে।

সূত্র: যুগান্তর

সর্বশেষ