নিম্ন ও মধ্যম আয়ের পরিবারে দুর্দশা বাড়িয়েছে মূল্যস্ফীতি

ঢাকায় বার্ষিক গড় ১১.০৮ শতাংশ : ক্যাব

২০২২ সালে ঢাকায় বার্ষিক গড় মূল্যস্ফীতি হয়েছে ১১ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ। এই মূল্যস্ফীতি বাড়ার ক্ষেত্রে ১৭টি পণ্য সরাসরি অবদান রেখেছে। গতকাল ‘২০২২ সালে ঢাকা মেগাসিটিতে মূল্যস্ফীতির চাপ ক্যাবের মূল পরিবীক্ষণ উপাত্ত থেকে প্রাপ্ত ফলাফলে’ এমন তথ্য জানা গেছে।

এটি প্রকাশ করেছে কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)। ক্যাব জানিয়েছে, ক্যাব ঢাকা মেগাসিটি (ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নিয়ে গঠিত) জুড়ে ১১টি বাজার থেকে মাসিক দামের তথ্য সংগ্রহ করে ফলাফলটি তৈরি করেছেন ড. মাহফুজ কবীর। দৈনিক দাম পর্যবেক্ষণে ১৪১টি খাদ্যসামগ্রী, ৪৯টি খাদ্যবহির্ভূত পণ্য এবং ২৫টি পরিষেবা অন্তর্ভুক্ত করে ফলাফল প্রকাশ করা হয়। তারা আরও জানায়, পণ্য ও সেবার মূল্যবৃদ্ধি মূল্যস্ফীতির হার বৃদ্ধিতে সবচেয়ে বেশি অবদান রেখেছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- চাল, আটা, ডাল, বেকারি পণ্য, চিনি, মাছ, ডিম, দেশি মুরগি, ভোজ্য তেল, আমদানি করা ফল, চা-কফি, স্থানীয় এবং আমদানি করা দুধ, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, ধোঁয়া এবং ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যসামগ্রী এবং পরিবহন খরচ। ড. মাহফুজ কবীর জানান, ২০২২ সালে মূল্যস্ফীতি আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য অনুযায়ী, ২০১১ সালের পর গত বছর সাধারণ মূল্যস্ফীতি রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছেছে। শহর ও গ্রামে উভয় জায়গায় মূল্যস্ফীতি বেড়েছে, যা বাংলাদেশের নিম্ন ও মধ্যম আয়ের পরিবারের দুর্দশা বাড়িয়েছে। তিনি আরও জানান, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে অর্থনৈতিক অস্থিরতা ও মন্দাভাব সৃষ্টি হয়েছে এবং বৈশ্বিক সরবরাহ শৃঙ্খলে ব্যাঘাত ঘটেছে। উচ্চ মূল্যস্ফীতির চাপ মানুষের প্রকৃত আয় এবং পারিবারিক কল্যাণ হ্রাস করে। এটি বেতনভোগী নিম্ন-মধ্যম এবং মধ্যম আয়ের পরিবারের দুর্দশা বাড়িয়ে দিয়েছে।

 

সর্বশেষ