ফারদিন হত্যা : দুই মাস পর কারামুক্ত বুশরা

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী ফারদিন নূর পরশের মৃত্যুর ঘটনায় গ্রেফতার হয়ে দুই মাস কারাভোগের পর মুক্তি পেয়েছেন আমাতুল্লাহ বুশরা।

মঙ্গলবার (১০ জানুয়ারি) দুপুর আড়াইটায় গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার থেকে মুক্ত হন বুশরা। বাবা মঞ্জুরুল ইসলাম তাকে আনতে কারাফটকে যান।

কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার ওবায়দুর রহমান এই তথ্য জানিয়েছেন।

এর আগে গত রোববার বুশরার অন্তবর্তীকালীন জামিন মঞ্জুর করেন ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালত-৭ এর বিচারক তেহসিন ইফতেখার।

গত ৭ নভেম্বর নিখোঁজের তিন দিন পর নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ফারদিনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ফারদিনের বাবা কাজী নুরউদ্দিন বাদী হয়ে রামপুরা থানায় মামলা দায়ের করলে গত ১০ নভেম্বর ফারদিনের বান্ধবী বুশরাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তিনি একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী।

আরও পড়ুন: ফারদিন-বুশরার সম্পর্কের কথা পরিবারের সবাই জানতো

এক মাসেরও বেশি সময় ধরে তদন্তের পর গত বছরের ১১ ডিসেম্বর পুলিশের গোয়েন্দা শাখা ও র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) জানায়, শীতলক্ষ্যা নদীতে সেতু থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন ফারদিন।

শুরু থেকে বুশরার পরিবার দাবি করে আসছে- সে নির্দোষ। ফারদিন হত্যায় তাকে ফাঁসানো হয়েছে। অন্যদিকে ফারদিন হত্যা নিয়ে পুলিশ এবং র‌্যাব যে বক্তব্য দিয়েছে তা মানতে রাজি নন ফারদিনের বাবা।

সর্বশেষ