গাজীপুরে তিন শ্রমিক মৃত্যুর গুজবে ৫ বাসে আগুন

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ছয়দানা এলাকায় রাস্তা পারাপারের সময় বাসচাপায় তিন শ্রমিক মারা গেছেন- এমন গুজবে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন উত্তেজিত শ্রমিকরা। এসময় পাঁচটি বাসে আগুন ধরিয়ে দেন তারা। ভাঙচুর করা হয় বেশ কয়েকটি গাড়ি। সড়ক অবরোধের কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন হাজার হাজার মানুষ। প্রায় এক ঘণ্টা পর পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনলে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

তবে বাসচাপায় কেউ মারা যাননি। তিনজন আহত হয়েছেন। তারা হলেন মরিয়ম বেগম ও আকিজা। অপর আহত শ্রমিকের নাম-পরিচয় জানাতে পারেনি পুলিশ।

গাজীপুর মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (ট্রাফিক) আলমগীর হোসেন ঢাকা মেইলকে জানান, পোশাক কারখানা ছুটির পর সন্ধ্যা ৭টার দিকে ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কের ছয়দানা এলাকায় সড়ক পার হচ্ছিলেন তিনজন শ্রমিক। এসময় ঢাকাগামী একটি বাস তাদের চাপা দিলে গুরুতর আহত হন তারা। তাদের উদ্ধার করে স্থানীয় তায়রুন্নেছা মেমোরিয়াল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য মরিয়ম ও আকিজাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

বাসচাপায় তিন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে এমন দাবি করে শত শত বিক্ষুব্ধ শ্রমিক সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। এতে মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এক পর্যায়ে পাঁচটি বাসে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। ভাঙচুর করা হয় বেশ কয়েকটি গাড়ি। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

তায়রুন্নেছা মেমোরিয়াল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অর্থোপেডিক বিভাগের চিকিৎসক কবীর হোসাইন ঢাকা মেইলকে বলেন, সন্ধ্যা ৭টা ৩৮ মিনিটে সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত মরিয়ম বেগম ও আকিজাকে হাসপাতালে আনা হয়। তাদের হাড়গোড় ভেঙেছে এবং মাথায় আঘাত রয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

গাজীপুর মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (উত্তর) মাহবুব উজ জামান জানান, সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন নারী একজন পুরুষ গুরুতর আহত হন। ঘটনার পর অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এছাড়া ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নেভায়। পরে প্রায় এক ঘণ্টা পর সড়কে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

সড়ক দুর্ঘটনার নামে বাসে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার বিষয়টি নাশকতা কি না তা তদন্ত করে দেখবে পুলিশ।

সর্বশেষ