সরকারের সামনে ১০ চ্যালেঞ্জ

 

♦ মেগা প্রকল্পগুলো চালু ও উদ্বোধন, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখা ♦ মাঠপ্রশাসনে সমন্বয় ♦ শিক্ষাঙ্গন ও শিল্পাঞ্চলে স্থিতিশীলতা ♦ দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ, কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি ♦ বিরোধী দলের আন্দোলন মোকাবিলা ♦ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ইমেজ ফিরিয়ে আনা ♦ আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখা জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ দমন ♦ অর্থনৈতিক মন্দা কাটিয়ে তোলা ♦ ব্যবসা-বাণিজ্য স্বাভাবিক রাখতে এলসিতে ডলারের জোগান ধরে রাখা ♦ রোহিঙ্গা শিবিরে নজরদারি বাড়ানো

সরকারের সামনে এখন নানামুখী চ্যালেঞ্জ রয়েছে, রয়েছে নানারকম ষড়যন্ত্র। রাজনৈতিক বিশ্লেষক, অর্থনীতিবিদ ও সাবেক আমলাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সরকারের সামনে অনেক বড় চ্যালেঞ্জ রয়েছে। এর মধ্যে মোটা দাগে ১০টি চ্যালেঞ্জকে গুরুত্ব দিতে হবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মেগা প্রকল্পগুলো চালু ও উদ্বোধন, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখা, মাঠপ্রশাসনে সমন্বয়, শিক্ষাঙ্গন-শিল্পাঞ্চলে স্থিতিশীলতা, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ, কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি, বিরোধী দলের আন্দোলন মোকাবিলা, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ইমেজ ফিরিয়ে আনা, আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখা, অর্থনৈতিক মন্দা কাটিয়ে তোলা, ব্যবসা-বাণিজ্য স্বাভাবিক রাখতে এলসি খোলায় ডলারের জোগান ধরে রাখা, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ দমন, রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে নজরদারি বাড়ানো।এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. এ কে আজাদ চৌধুরী বলেন, ‘চলতি বছর সরকারের জন্য অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে। এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় শুধু সরকার নয়, জনগণসহ সবার সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রয়োজন।

জনগণের আস্থা, বিরোধী দলের আস্থা, সরকারের দক্ষতা- এগুলো মিলে দেশের কথা চিন্তা করে জনগণের কথা চিন্তা করতে হবে। তা হলেই আমরা আগামীর অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে পারব।’

সরকারের নীতিনির্ধারকরাও বলছেন, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে বিশ্ববাজারে জ্বালানির দাম বেড়েছে। এর প্রভাবে খাদ্যসামগ্রীসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বেড়েছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে এ বছরে দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রেখে জনগণকে খুশি রাখতে হবে। নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে না রাখতে পারলে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তার প্রভাব ফেলতে পারে। আবার বিশ্ব অর্থনৈতিক যে মন্দা চলছে তা-ও কাটিয়ে উঠতে হবে সরকারকে। বিগত বছরের ১০ ডিসেম্বর বিএনপি ঢাকা দখলের যে হাঁকডাক দিয়েছিল, সরকার ও আওয়ামী লীগের সক্রিয়তার কারণে তা তারা পারেনি। কিন্তু নতুন বছরের মার্চ থেকে একতরফা আন্দোলনে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় জোট। এটাও শক্ত হাতে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। দমন-পীড়ন যেমন করা যাবে না, তেমনি কৌশলে তাদের আন্দোলন সরকারের নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আগামী বছরের শুরুতে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এ নির্বাচন সামনে রেখে আমাদের অনেক চ্যালেঞ্জ আছে। এর মধ্যে উন্নয়ন প্রকল্পগুলো চালু রাখা, বাজার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখা, জনগণের মন জয় করে ভোটে জিতে আসা।’ তিনি বলেন, ‘সরকারের সামনে যত চ্যালেঞ্জই আসুক তা মোকাবিলা করার সক্ষমতা রয়েছে। কারণ দেশ পরিচালনা করছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। তিনি দেশের মানুষের জন্য কাজ করেন। জনগণের মনের ভাষা বোঝেন। দক্ষতা, সততা, সাহস ও অভিজ্ঞতা দিয়ে সব পরিস্থিতি মোকাবিলায় তিনি সফল হন এবং হবেন।’

আওয়ামী লীগ সরকার টানা ক্ষমতায় থাকার ফলে দেশে অভূতপূর্ব উন্নয়ন চলমান। সরকারের অগ্রাধিকারের অনেক প্রকল্প ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। অনেক কাজ চলতি বছরে শেষ হবে। বিশ্ব অর্থনৈতিক পরিস্থিতির কারণে খুব বেশি প্রয়োজন না হলে নতুন কোনো প্রকল্প গ্রহণ করার আপাতত পরিকল্পনা সরকারের নেই বলে জানা গেছে। তবে যেসব প্রকল্প চালু রয়েছে সেগুলো দ্রুত শেষ করাই বড় চ্যালেঞ্জ। কারণ উন্নয়নগুলো দৃশ্যমান হলে এসব প্রকল্পই হবে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ট্রাম্পকার্ড। চলতি বছরে খুলে দেওয়া হবে বঙ্গবন্ধু কর্ণফুলী টানেল। এ বছর স্বপ্নের পদ্মা সেতুতে চলবে রেল, উদ্বোধন হবে বিমানবন্দরের থার্ড টার্মিনাল, ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, বিআরটির মতো মেগা প্রকল্প। খুলনা-মোংলা রেল প্রকল্প, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেল প্রকল্পের কাজ। রংপুর-ঢাকা ফোর লেন মহাসড়ক। চলতি বছরই মতিঝিল পর্যন্ত চালু হবে মেট্রোরেল। মেট্রোরেলের মোট ছয়টি মাল্টিলাইন ২০৩০ সালে শেষ করার টার্গেট, ঢাকা-সিলেট চার লেন প্রকল্প, ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলসেতু প্রকল্পের কাজও। এগুলো শেষ করাই বর্তমান সরকারের অন্যতম লক্ষ্য। চলমান উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রাখতে হবে বর্তমান সরকারকে। সরকারের একাধিক সূত্র জানিয়েছেন, আগামী বছরের শুরুতেই জাতীয় সংসদ নির্বাচন হওয়ার কারণে মাঠ প্রশাসন ঢেলে সাজাতে খুব দক্ষতার পরিচয় দিতে হবে। ‘খোলস’ পাল্টানো আমলাদের যেখানে সেখানে পদায়ন বর্তমান সরকারের জন্য বুমেরাং হতে পারে। সেজন্য সঠিক ব্যক্তিকে পদায়ন করতে হবে। আবার মাঠপ্রশাসনের সঙ্গে সঠিকভাবে সমন্বয়ও করতে হবে।

নির্বাচনী বছর হওয়ায় শিক্ষাঙ্গনে স্থিতিশীল পরিবেশ একটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হিসেবে ধরা হচ্ছে। কোনোভাবেই যেন শিক্ষাঙ্গন অস্থিতিশীল না হয় সেজন্য সরকারকে তীক্ষè দৃষ্টি রাখতে হবে। একই সঙ্গে বিভিন্ন শিল্পাঞ্চলে নানারকম ইস্যু তৈরি করে সরকারকে অস্থিতিশীল করার পাঁয়তারা করতে পারে সরকারবিরোধীরা। সে পরিস্থিতিও শক্ত হাতে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। শিল্পাঞ্চলে স্থিতিশীল পরিবেশ না থাকলে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে দেশের অর্থনীতি।

আগামী মার্চ থেকে সরকার পতনের একতরফা আন্দোলনের দিকে যাবে বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় জোট। বিশ্বের শক্তিশালী দেশগুলো দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সবার অংশগ্রহণ দেখতে চায়। বিরোধী দলগুলোর আন্দোলন নিয়ন্ত্রণে রেখে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করানোও সরকারের সামনে একটি বড় চ্যালেঞ্জ। বিরোধী দলসহ একটি বিশেষ মহল আন্তর্জাতিকভাবে সরকারকে হেয় করতে অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে। একই সঙ্গে তারা বিভিন্ন দাতা দেশসহ মোড়ল দেশগুলোয় সরকারের বিরুদ্ধে মানবাধিকার হরণ, গণতন্ত্র হরণসহ নানা অভিযোগ দিচ্ছে। এসব কারণে ইতোমধ্যে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কিছু কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এই নতুন বছরে সরকারকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ইমেজ ফিরিয়ে আনতে হবে। এ ছাড়া আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিও নিয়ন্ত্রণে রাখা সরকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ।

অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে হলে ব্যবসা-বাণিজ্য সঠিকভাবে যেন করা যায় সেজন্য সরকারকে সব পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। বিশেষ করে বৈশ্বিক মন্দায় ডলার সংকটে চাহিদামতো এলসি খুলতে না পেরে বিপাকে পড়ছেন আমদানিকারকরা। বাজারের চাহিদা মোতাবেক যেন করা যায় সেজন্য ডলার সাপোর্ট দিতে হবে সরকারকে। চলতি বছর বিশ্বে খাদ্যের সংকট হতে পারে এমন ঘোষণা খোদ সরকারপ্রধান গত বছর থেকে বলে আসছেন। এজন্য দেশবাসীকে কোনো জমি যেন খালি রাখা না হয় সেজন্য তাগিদ দিয়েছেন। শুধু জমিই নয়, বাড়ির আঙিনায় খালি জায়গায়ও সবজি লাগানোর পরামর্শ দিয়েছেন। সে কারণে খাদ্যের ঘাটতি মেটাতে সরকারকে যুগোপযোগী পদক্ষপ গ্রহণ করতে হবে।

সরকারের স্থিতিশীল পরিবেশ রাখার জন্য আরেকটি বড় অন্তরায় জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসের উত্থান। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করার ফলে জঙ্গিবাদের উত্থান না হলেও একেবারে নির্মূল হয়েছে সে দাবি কেউ করেনি। সে কারণে জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে দেশে যেন জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদের উত্থান না ঘটে সেই পদক্ষেপ নিতে হবে। ‘হিজরত’ করার নামে কিছু তরুণ ঘর ছাড়ছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলো ইতোমধ্যে অনেক বিপথগামী ‘ঘরছাড়া’ তরুণকে উদ্ধার করে তাদের পরিবারে হস্তান্তর করেছে।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে রোহিঙ্গাদের বিষয়টি মাথায় রাখতে হচ্ছে। কারণ টাকা পেলে রোহিঙ্গারা যে কোনো ধরনের কাজে লিপ্ত হতে পারে। একটি চক্র রোহিঙ্গা নাগরিকদের ব্যবহারের সুযোগ খুঁজছে। তবে এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনকে কঠোর অবস্থানে থাকতে হবে। রোহিঙ্গা শিবিরে কড়া নজরদাড়ি বাড়াতে হবে। বর্তমান সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহিষ্ণুতা নীতি ঘোষণা করেছে। কিন্তু দুর্নীতির ঘটনাগুলো ঘটছে। কিছু ব্যক্তি, কর্মকর্তাকে দুর্নীতির দায়ে সাজা দেওয়া হলেও প্রকৃত দুর্নীতিবাজরা ধরাছোঁয়ার বাইরে, এমন একটি ধারণা ক্রমে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। এ বাস্তবতায় শেষ পর্যন্ত দুর্নীতি মোকাবিলায় সরকার কতটা সফল হয়েছে তা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন বাড়ছে। আর এ সবকিছুই সামনে রেখে সরকারকে এগোতে হবে। দেখার বিষয়, এ চ্যালেঞ্জগুলো সরকার কীভাবে মোকাবিলা করে।

সর্বশেষ