ভুয়া ডিবি পুলিশ পরিচয়দানকারী ছিনতাই চক্রের ০৫ সদস্য গ্রেফতার

হাসানুজ্জামান সুমন,বিশেষ-প্রতিনিধি: আজ ০২.০১.২০২৩( সকাল ১১ঃ৩০ ঘটিকা) প্রেস ব্রিফ এ মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বিপিএম-বার, পিপিএম-বার অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ডিবি) ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে বলেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা (মতিঝিল) বিভাগ বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ভুয়া ডিবি পুলিশ পরিচয়দানকারী ছিনতাই চক্রের ০৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে। গত ০১/০১/২০২৩ খ্রি: তারিখ রাজধানীর ঢাকেশ^রী মন্দির এলাকা হতে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের নামঃ ১। পিযুষ সুর (২৭), ২। মোঃ হারুন (৩৮), ৩। জোবায়ের হোসেন পারভেজ, ৪। মোঃ আরিফ হোসেন (২৯) এবং ৫। খোকন চন্দ্র দেবনাথ (৪২)। গ্রেফতারের সময় তাদের হেফাজত হতে ১) ০২ টি কালো রংয়ের নোয়াহ্ মাইক্রোবাস ২) ০১ টি সাদা রংয়ের প্রভোক্স প্রাইভেট কার, ৩) ০২ টি পুলিশের রিফ্লেক্টিং ভেষ্ট এবং ৪) ০১ টি হ্যান্ডকাপ উদ্ধার করা হয়।

উল্লেখ্য, গত ১৩/১২/২২খ্রিঃ তারিখ রাত ২০:০০ ঘটিকার সময় মতিঝিল থানাধীন সিটি সেন্টার পার হয়ে অলিম্পিয়া বেকারীর সামনে ভিকটিম রিক্সাযোগে যাওয়ার সময় ০১ টি কালো রঙের নোয়াহ্ গাড়ি তার রিক্সার গতিরোধ করে ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে তার কাছে অবৈধ মালামাল আছে বলে রিক্সা থেকে নেমে নোয়াহ্ গাড়িতে উঠতে বলে। ভিকটিম গাড়িতে উঠতে না চাইলে চর থাপ্পড় মেরে জোরপূর্বক ধাক্কা দিয়ে গাড়িতে উঠায়। অতঃপর ভিকটিমের দুই হাতে হ্যান্ডকাপ পরিয়ে তার কাছে থাকা নগদ ৪,৮৫,০০০/- টাকা মূল্যের বিদেশী মুদ্রা এবং ০১ টি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। পরবর্তীতে তারা ভিকটিমকে নোয়াহ্ গাড়ীতে করে রাজধানীর শাপলা চত্ত¡র, ধোলাইপাড় টোলপ্লাজা, ধলেশ^রী টোলপ্লাজা কুচিয়ামারা ব্রিজ হয়ে ঢাকা মাওয়া সড়কে পিডিএল ক্যাম্পের সামনে রাত ২০:৩৮ ঘটিকার সময় ভিকটিমকে গাড়ি থেকে নামিয়ে দিয়ে তারা মাওয়ার দিকে চলে যায়।

গোয়েন্দা মতিঝিল বিভাগ ভিকটিমের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঘটনাস্থলের ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে। উক্ত ভিডিও ফুটেজে দেখা যায় রাত ১৯:৫৩ ঘটিকার সময় সিটি সেন্টারের সামনে দিয়ে রিক্সাযোগে শাপলা চত্ত¡রের দিকে যাচ্ছিল সে সময় কালো নোয়া গাড়ি রিক্সার পিছনে পিছনে যাচ্ছিল। এরপর সিটি সেন্টার পার হয়ে অলিম্পিয়া বেকারীর সামনে থেকে ঐ কালো নোয়া গাড়িতে করে ভিকটিমকে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে শাপলা চত্ত¡র, ধোলাইপাড় টোলপ্লাজা এবং ধলেশ^রী টোলপ্লাজার ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে দেখা যায় ঐ কালো নোয়া গাড়িটি রাত ২০ঃ১৭ ঘটিকার সময় ধলেশ^রী টোলপ্লাজায় টোল দিয়ে অতিক্রম করে। গোয়েন্দা তথ্য এবং প্রযুক্তিগত সহায়তায় কালো রঙের নোয়াহ্ গাড়িটি পশ্চিম নাখালপাড়া থেকে উদ্ধার করা হয়। গাড়ির মালিক ও ড্রাইভারকে জিজ্ঞাসাবাদে, প্রযুক্তির ব্যবহার এবং গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে আসামীদের সনাক্তপূর্বক ঢাকেশ^রী মন্দির এলাকা হতে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, গ্রেফতারকৃতরা পারস্পরিক যোগসাজসে প্রাইভেট কার নিয়ে ঢাকা মহানগর এলাকার বিভিন্ন ব্যাংক সহ আর্থিক প্রতিষ্ঠানের আশে পাশে ঘোরাফেরা করে ব্যাংকে টাকা জমা দিতে আসা, ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করে বের হওয়া এবং মানি এক্সচেঞ্জ এর ব্যক্তিদের টার্গেট করে। ব্যক্তি সনাক্তের পর উক্ত ব্যক্তির পিছনে পিছনে গাড়ি নিয়ে সুবিধাজনক স্থানে ব্যারিকেড দিয়ে নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে জোরপূর্বক গাড়িতে তুলে নেয়। গাড়িতে তুলে ভিকটিমের নিকটে থাকা নগদ অর্থ ও মূল্যবান মালামাল কেড়ে নিয়ে সুবিধাজন নির্জন স্থানে ফেলে যায়। ছিনতাই চক্রের সদস্যরা ০২ টি গ্রæপে বিভক্ত হয়ে পৃথক ০২ টি গাড়িতে করে উক্ত কার্যক্রম করে থাকে। গ্রেফতারকৃতরা আরও জানায় তাদের গ্রæপের প্রধান পলাতক শহীদুল ইসলাম মাঝি।

পলাতক শহীদুল ইসলাম মাঝির বিরুদ্ধে সারাদেশে সর্বমোট ১৬টি মামলা রয়েছে। ইতিপূর্বে শহীদুল ইসলাম মাঝিকে ডিবি পুলিশ একাধিকবার গ্রেফতার করে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ্দ করে। পলতক শহীদুল ইসলাম মাঝিসহ তার অন্যান্য সহযোগীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে মতিঝিল থানায় ১ টি মামলা রুজু করা হয়েছে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা মতিঝিল বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার জনাব মোঃ রাজীব আল মাসুদ বিপিএম-সেবা এর নির্দেশনায় অভিযানটি পরিচালিত হয়।

সর্বশেষ