না ফেরার দেশে চলে গেলেন পেলে!

আকাশ দাশ/ক্রীড়া প্রতিবেদক
দীর্ঘদিন মৃত্যুর সাথে লড়াই করে অবশেষে হার মেনে পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন ফুটবল সম্রাট পেলে। বৃহস্পতিবার ব্রাজিলের সাও পাওলোর একটি হাসপাতালে এই কিংবদন্তি ফুটবলারের মৃত্যু হয়েছে।

খেলোয়াড়ী জীবনে নিজের পারফরম্যান্সের কারণে পেয়েছেন অনেক স্বীকৃতি। ১৯৯৯ সালে শতাব্দীর সেরা অ্যাথলেট হিসেবে স্বীকৃতি পান আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির কাছ থেকে। ফিফার ‘প্লেয়ার অব দ্য সেঞ্চুরি’ হয়েছেন ম্যারাডোনার সঙ্গে যৌথভাবে। ফুটবল ইতিহাসে একমাত্র ফুটবলার হিসেবে তিনটি বিশ্বকাপ জয় করেন পেলে। ১৯৫৮ সালে যখন ব্রাজিল বিশ্বকাপ জয় করে, তখন পেলের বয়স ছিল কেবল ১৭ বছর। এরপর ১৯৬২ এবং ১৯৭০ সালেও বিশ্বকাপ জয় করেন তিনি।

১৩৬৩ ম্যাচ খেলে ১২৭৯ গোল করেছেন পেলে। ক্লাব ক্যারিয়ারের পুরোটাই তিনি কাটিয়েছেন ব্রাজিলের দল সান্তোসে। ১৫ বছর বয়সে ক্লাব ও এক বছর পর জাতীয় দলের হয়ে অভিষেক হয় তাঁর। এরপর দেশের হয়ে ১৯৫৮, ১৯৬২ ও ১৯৭০ এর বিশ্বকাপ জেতেন পেলে। যেখানে মাত্র ১৭ বছর বয়সে ফুটবল বিশ্বকাপ জিতেছেন তিনি। তবে চোটের কারণে ১৯৭৭ সালে ফুটবলকে বিদায় বলেন এই কিংবদন্তি।

১৯৪০ সালের ২৩ অক্টোবর ব্রাজিলের ট্রেস কোরাসোয়েসে জন্মগ্রহণ করেছিলেন পেলে। যে ট্রেস কোরাসোয়েসের অর্থ হল ‘তিনটি হৃদয়’। বাবার থেকে রক্তে ফুটবল এসেছিল পেলের। তাঁর বাবা আধা-পেশাদারি ফুটবল লিগে খেলতেন। কিন্তু হাঁটুর চোটের জন্য ক্যারিয়ারে শেষ হয়ে যায় তার।

উল্লেখ্য গত ২৯ নভেম্বর ফুটবল বিশ্বকাপ চলাকালীন সময়ে ক্যান্সারে আক্রান্ত পেলেকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। এছাড়া তিনি দীর্ঘদিন কিডনি জনিত রোগে ও আক্রান্ত ছিলেন এবং গতকাল রাতে সাও পাওলো হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। এর আগে পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিলো পেলের অবস্থা খুব সংকটনাপন্ন।

সর্বশেষ