দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হলে রুখে দাঁড়াবে পুলিশ মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায়-ডিএমপি কমিশনার

দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হলে রুখে দাঁড়াবে পুলিশ মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায়-ডিএমপি কমিশনার

হাসানুজ্জামান সুমন,বিশেষ-প্রতিনিধি: ডিএমপি কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক বিপিএম-বার, পিপিএম বলেছেন, দেশের বিরুদ্ধে যে কোন ষড়যন্ত্র হলে অতীতের মতো রুখে দাঁড়াবে দেশপ্রেমিক পুলিশ। জঙ্গি দমনে সাহসিকতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছে পুলিশ। বুকের তাজা রক্ত দিয়ে শহীদ হয়েছেন অনেক বীর পুলিশ সদস্য।কিন্তু কোন অপশক্তিই আমদেরকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। দেশের যে কোন ক্রান্তিলগ্নে পিছপা হইনি। আমার বিশ্বাস দেশের বিরুদ্ধে যে কোন ষড়যন্ত্র হলে অতীতের মতো দেশপ্রেম দিয়ে আপনারা রুখে দিতে পারবেন। গতকাল সোমবার (১৯ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রি.) সকালে ডিএমপি হেডকোয়ার্টার্সে সম্মেলন কক্ষে নভেম্বর ২০২২ মাসের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় ডিএমপি কমিশনার এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ পুলিশের সকল বীর মুক্তিযোদ্ধা, ৩০ লক্ষ শহীদ ও ২ লক্ষ মা-বোনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ডিসেম্বর মাস যদিও বিজয়ের মাস এ মাস ট্র্যাজেডির মাসও। স্বাধীনতার পরাজিত শক্তি কিন্তু বসে নেই, তারা ৭১ এর পর থেকে স্বাধীনতাকে হুমকির মুখে ফেলতে বারবার চেষ্টা করে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ পুলিশ বারবারই তাদের এই ষড়যন্ত্রকে নস্যাৎ করে দিয়েছে। দেশের ক্রান্তিলগ্নে বুকের তাজা রক্ত বিলিয়ে দিতে কুন্ঠাবোধ করেনি। ১৯৭১ ও ১৯৭৫ সালে পুলিশ বুকের তাজা রক্ত দিয়ে দেশপ্রেমের প্রমাণ দিয়েছে। মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভার শুরুতেই গত নভেম্বর মাসের খাতওয়ারী অপরাধ বিবরণী পর্যালোচনা করা হয়। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা তথা অপরাধ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সংশ্লিষ্ট সকলকে বিভিন্ন ধরনের গুরুত্বপূর্ণ দিক-নির্দেশনা প্রদান করেন তিনি। সভায় ঢাকা মহানগরের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা ও জননিরাপত্তা বিধানসহ ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে শ্রেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তাদের পুরস্কৃত করেন ডিএমপি কমিশনার। নভেম্বর মাসে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ৮টি ক্রাইম বিভাগের মধ্যে শ্রেষ্ঠ হয়েছে মিরপুর বিভাগ। শ্রেষ্ঠ থানা হয়েছে মোহাম্মদপুর থানা। সহকারী পুলিশ কমিশনারদের মধ্যে প্রথম হয়েছেন তেজগাঁও বিভাগের মোহাম্মদপুর জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার দেবাশীষ কর্মকার। পুলিশ পরিদর্শক তদন্তদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ হয়েছেন মোহাম্মদপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শেখ মোহাম্মদ কামরুজ্জামান।

পুলিশ পরিদর্শকদের (অপারেশনস্) মধ্যে প্রথম হয়েছেন যাত্রাবাড়ী থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশনস্) জাকির হোসাইন। শ্রেষ্ঠ এসআই যৌথভাবে নির্বাচিত হয়েছেন চকবাজার মডেল থানার এসআই মোঃ নুর উদ্দিন ও পল্লবী থানার এসআই মোঃ সাইফুল ইসলাম। বিস্ফোরক উদ্ধার করে প্রথম হয়েছেন চকবাজার মডেল থানার এসআই মোঃ নুর উদ্দিন। মাদকদ্রব্য উদ্ধার করে শ্রেষ্ঠ হয়েছেন পল্টন মডেল থানার এসআই সুজন কুমার তালুকদার এবং চোরাই গাড়ি উদ্ধার করে শ্রেষ্ঠ হয়েছেন গেন্ডারিয়া পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মোঃ নাজমুল হাসান মোল্লা, মোহাম্মদপুর থানার এসআই মতিউর রহমান ও ভাটারা থানার এসআই মোঃ মশিউল আজম ভূইয়া। অস্ত্র উদ্ধার করে প্রথম হয়েছেন যাত্রাবাড়ী থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশনস্) জাকির হোসাইন। আর ওয়ারেন্ট তামিলকারী অফিসার হিসেবে শ্রেষ্ঠ নির্বাচিত হয়েছেন পল্লবী থানার এসআই মোঃ সাইফুল ইসলাম। এএসআইদের মধ্যে যৌথভাবে শ্রেষ্ঠ হয়েছেন মতিঝিল থানার এএসআই মোঃ হেলাল উদ্দিন ও মিরপুর মডেল থানার এএসআই মোবারক হোসেন। ৯টি গোয়েন্দা বিভাগের মধ্যে প্রথম হয়েছে গোয়েন্দা-গুলশান বিভাগ।

শ্রেষ্ঠ টিম লিডার ও মাদকদ্রব্য উদ্ধারে শ্রেষ্ঠ টিম হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন ওয়ারী-বিভাগের ডেমরা জোনাল টিমের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ আজহারুল ইসলাম মুকুল পিপিএম। চোরাই গাড়ি উদ্ধারে শ্রেষ্ঠ টিম লিডার হয়েছেন গোয়েন্দা-লালবাগ বিভাগের কোতয়ালী জোনাল টিমের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ কায়সার রিজভী। অজ্ঞান/মলম পার্টি গ্রেফতারে শ্রেষ্ঠ টিম লিডার নির্বাচিত হয়েছেন গোয়েন্দা-রমনা বিভাগের অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও মাদক নিয়ন্ত্রণ টিমের সহকারী পুলিশ কমিশনার নাজিয়া ইসলাম। অস্ত্র উদ্ধারে শ্রেষ্ঠ টিম লিডার নির্বাচিত হয়েছেন গোয়েন্দা-মতিঝিল বিভাগের অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও মাদক নিয়ন্ত্রণ টিমের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন। ৮টি ট্রাফিক বিভাগের মধ্যে প্রথম হয়েছে ট্রাফিক-ওয়ারী বিভাগ। ট্রাফিকের শ্রেষ্ঠ সহকারী পুলিশ কমিশনার হয়েছেন ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের যাত্রাবাড়ী-ট্রাফিক জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার বাহা উদ্দিন ভূঁঞা। শ্রেষ্ঠ ট্রাফিক ইন্সপেক্টর হয়েছেন ট্রাফিক ওয়ারী-বিভাগের যাত্রাবাড়ী-ট্রাফিক জোনের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর হোসেন জাকারিয়া মেনন।

শ্রেষ্ঠ ট্রাফিক সার্জেন্ট যৌথভাবে নির্বাচিত হয়েছেন রমনা বিভাগের ট্রাফিক-রমনা জোনের সার্জেন্ট মফিজুর রহমান ও ট্রাফিক গুলশান বিভাগের বাড্ডা-ট্রাফিক জোনের মোর্শেদা। এছাড়াও ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগসহ ১৩ টি বিভাগ ও বিভিন্ন পদ মর্যাদার অফিসার এবং ফোর্সকে বিশেষ পুরস্কার প্রদান করা হয়। প্রতি মাসে ঘটে যাওয়া অপরাধ বিশ্লেষণ, অপরাধ নিয়ন্ত্রণে পরবর্তী কর্মপন্থা ও কর্মকৌশল সম্পর্কিত নির্দেশনার পাশাপাশি মাঠ পর্যায়ের পুলিশ সদস্য ও কর্মকর্তাদের উদ্দীপনা বাড়াতে প্রতিমাসের কার্যক্রম পয়েন্ট আকারে যোগ করে পরবর্তী মাসের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় পুরস্কৃত করে থাকেন ডিএমপি কমিশনার। মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অ্যাডমিন) মীর রেজাউল আলম বিপিএম-বার, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস্) এ কে এম হাফিজ আক্তার বিপিএম-বার, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মোঃ মুনিবুর রহমান ও অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (সিটিটিসি) মোঃ আসাদুজ্জামান বিপিএম-বার, যুগ্ম পুলিশ কমিশনারগণ, উপ-পুলিশ কমিশনারগণ ও বিভিন্ন পদমর্যাদার কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষ