মনোহরদীতে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সদস্যদের অনাস্থার প্রস্তাব

নরসিংদীর মনোহরদী উপজেলার খিদিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাউসার রশিদ বিপ্লবের বিরুদ্ধে অনাস্থার প্রস্তাব এনেছেন ইউনিয়ন পরিষদের ৭ জন সদস্য।

আজ বুধবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিতভাবে তারা অনাস্থা প্রস্তাব জমা দেন এবং তাঁর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান। এ ছাড়াও স্থানীয় সংসদ সদস্য ও শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, নরসিংদী জেলা প্রশাসক, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক এবং মনোহরদী উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে অনাস্থা প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। তিনি সদস্যদের সঙ্গে কোনো ধরনের সমন্বয় ও পরামর্শ ছাড়াই মনগড়া পরিষদ চালাচ্ছেন।

ইউনিয়ন পরিষদের কোন কার্যক্রম পরিচালনা না করে সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে ভয়-ভীতি দেখিয়ে সদস্যদেরকে দূরে রেখে পরিষদের অর্থ আত্মসাতের উদ্দেশ্যে ইউনিয়ন পরিষদকে পৈত্রিক সম্পত্তি মনে করে লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করে আসছেন।

ইউপি সদস্যদের অভিযোগ, ইউনিয়ন পরিষদের সিদ্ধান্ত ছাড়া বেআইনিভাবে সম্পূর্ণ একক সিদ্ধান্তে ইউনিয়নের জনগনের নিকট হতে প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা কর উত্তোলন করে ব্যাংকে জমা না করে নিজের কাছে রেখে দিয়েছেন। ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরে এলজিএসপি-৩ এর আওতায় ইটের সলিংয়ের দুটি প্রকল্পের ছয় লাখ ১৯ হাজার টাকার কাজ কাউকে না জানিয়ে একক সিদ্ধান্তে নিম্ন মানের কাজ করে অর্থ আত্মসাৎ করেছেন।

চলতি অর্থ বছরের স্থাবর সম্পত্তি হন্তান্তর কর (ওয়ান পার্সেন্ট) হতে প্রাপ্ত তিন লাখ টাকা রাজস্ব গোপনীয়ভাবে আত্মসাৎ করেছেন। ভিজিএফ ভিজিডি, প্রতিবন্ধী ও বয়স্কভাতার সুনির্দিষ্ট কমিটি ও নীতিমালা অনুসরণ না করে ইচ্ছে মতো নাম অন্তর্ভূক্ত করে আসছেন।

অভিযোগকারীরা আরও জানান, বিভিন্ন সনদ দিতে সরকার নির্ধারিত ফি ছাড়াও অতিরিক্ত টাকা আদায়, সরকারি সম্পদ আত্মসাৎ, বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ না করিয়ে অর্থ উত্তোলন ও আত্মসাৎ, ইউনিয়ন পরিষদের আয়ের টাকা ব্যাংক হিসাবে জমা না করে চেয়ারম্যানের নিজে ব্যয় করার অভিযোগও করেছেন তারা। অনাস্থা প্রস্তাবকারী সদস্যরা হলেন- মো. কাজল মিয়া, মো. সোলেমান, মো. শফিকুল ইসলাম, সৈয়দ মহসীন কবির, নাসিমা বেগম, মিনারা খাতুন শিকদার, মো. মোস্তফা হোসেন, তারা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান। অনাস্থা প্রস্তাব প্রসঙ্গে খিদিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাউসার রশিদ বিপ্লব বলেন, ‘অভিযোগের বিষয়ে আমি কিছু জানি না।

তাদের সঙ্গে কোনো ঝামেলা হয়নি। কেন আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করছে, তাও জানি না।’ জানতে চাইলে মনোহরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম বলেন, ‘চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মেম্বারদের লিখিত অভিযোগ আমার কাছে এসেছে। বিষয়টি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সর্বশেষ