স্টেডিয়াম নাইন সেভেন ফোর স্মৃতি হয়ে থাকবে আজীবন

আকাশ দাশ/ক্রীড়া প্রতিবেদক মরুর বুকে স্টেডিয়াম! হয়তো কল্পনা করেননি আপনি. কিন্তু সব কল্পনা-জল্পনাকে পিছু হটিয়ে স্টেডিয়াম তৈরি করেছে কাতার। একটি দুইটি নয় সমলোচকদের তাক লাগিয়ে আটটি স্টেডিয়াম তৈরি করেছে দেশটির সরকার। সবুজ ঘাসের বুকে যেখানে চলছে বর্তমান বিশ্বকাপের ম্যাচগুলো। তবে কাতারের তৈরি করা স্টেডিয়ামগুলোর মধ্যে অন্যতম স্টেডিয়াম নাইন সেভেন ফোর। স্টেডিয়াম নাইন সেভেন ফোর! কাতারের অভিনব এক স্টেডিয়াম। কাতারের রাজধানী দোহা থেকে ১০ কিলোমিটার পূর্বে পারস্য সাগরের তীর ঘেঁষে নির্মাণ করা স্টেডিয়ামের নাম প্রথমে দেওয়া হয়েছিলো রাশ আবু আবুদ নামে। তবে পরবর্তীতে কাতারের ডায়ারিং কোড নম্বর আর স্টেডিয়াম তৈরিতে ৯৭৪টি শিপিং কন্টেইনার ব্যবহার করা হয়েছিলো বলে স্টেডিয়ামটির নাম হয়েছিলো স্টেডিয়াম নাইন সেভেন ফোর।

তাছাড়া ফুটবল বিশ্বকাপের ইতিহাসে এটিই প্রথম অস্থায়ী স্টেডিয়াম। গত ২২শে নভেম্বর মেক্সিকো ও পোল্যান্ডের ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপে অভিষেক হয়েছিলো এই অভিনব স্টেডিয়ামের। যেই স্টেডিয়ামে পা পড়েছে নেইমার-মেসি-রোনালদোর মতো সময়ের সেরা ফুটবল তারকাদের। হয়েছিলো কয়েকটি বড় ম্যাচ সহ মোট ৭টি ম্যাচ। তবে দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে ব্রাজিলের ম্যাচটি ছিলো এই স্টেডিয়ামের শেষ ম্যাচ। কারণ কৃত্রিমভাবে তৈরি করা এই স্টেডিয়াম মডিউলার স্টিল ও শিপিং কন্টেইনার দিয়ে তৈরির কারণে সহজেই ভেঙে ফেলা যাবে অন্যথায় বিশ্বকাপ শেষে যেসকল দেশ স্টেডিয়াম তৈরিতে অসমর্থ তাদের মধ্যে যেকোন একদেশকে অনুদান হিসেবে দিয়ে দেওয়া হবে কাতার সরকারের পক্ষ হতে।

এইদিকে স্টেডিয়াম ভাঙার সময় যাতে দূষণ না হয়, তা আলাদা ভাবনাও নিয়েছে কাতার প্রশাসন তাছাড়া প্রয়োজনে ওই কন্টেইনার পুনরায় ব্যবহারও করা যাবে। কৃত্রিম উপায়ে তৈরি করা এই স্টেডিয়াম এখন শুধু স্মৃতি হয়ে থাকবে কাতারে খেলা দেখতে যাওয়া হাজারো সমর্থকদের মনে। কারণ বিশ্বকাপ শেষে এই স্টেডিয়ামের আর থাকবে না কোন অস্তিত্ব। হয়তো আবারো কোন ভিনদেশী সমর্থক কাতারে পাড়ি জমাবে কোন এক পর্যটক হিসেবে। কিন্তু সেইদিন হয়তো চিরচেনা সেই স্টেডিয়ামকে দেখতে পারবে না। হয়তো দেশের কোন নাগরিক সেই স্থানটিতে বারবার গিয়ে বলবে, ইশ এইখানে একটা স্টেডিয়াম ছিলো যেখানে আমি বসে প্রিয় ফুটবলারের খেলা দেখেছি….সাগরের জলরাশির সাথে বলবে গল্প আমি এসেছিলাম তোমাকে নয় নাইন সেভেন ফোরের প্রেমে পড়ে.. হবে গল্প হবে কথা তবে স্টেডিয়াম নাইন সেভেন ফোর থাকবে ইতিহাসের পাতায়….

সর্বশেষ