প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাতের মামলা খেল শাহরাস্তির প্রীতি পাল

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ বিভিন্ন ছেলেদের সাথে প্রেমের অভিনয় করে, গোপনে কখনো সিঁধূর পড়ে কখনো ননজুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্পের মাধ্যমে একাধিক ছেলেকে বিয়ে করে ফাঁদে ফেলে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে শাহরাস্তি উপজেলার নিজ মেহার গ্রামের মৃত খোকন পালের ২য় মেয়ে প্রীতি পালের বিরুদ্ধে। জানা যায়,কৃষ্ণ পুরের এক হিন্দু শিক্ষককে প্রেমের ফাঁদে ফেলে গোপনে সিঁধূর পড়ে বিয়ে করে প্রীতি পাল। বিয়ের পরেই বিভিন্ন বাহনায় অর্থ হাতিয়ে সেখানে থেকে সটকে পরে।তার কিছুদিন পর নিজ মেহারের আরেক ছেলেকে ননজুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্পের মাধ্যমে বিয়ে করে বিভিন্ন সময় নামীদামী উপহার, ভিআইপি রেষ্টুরেন্টে খাওয়া দাওয়া করে বিলাসী জীবন যাপন করতো প্রীতি।তার থেকেও নগদ অর্থ হাতিয়ে সরে পড়ে প্রীতি।

টার্গেট করে এবার হিন্দু প্রবাসীদের, সফলও হয় প্রীতি।বাহরাইন প্রবাসী হৃদয় সূত্রধর নামে এক ছেলের সাথে মেসেঞ্জারে কথা বার্তা বলে তাকেও প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিদেশী নামি দামী উপহার ও লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেয় বলে মামলার বিবরণে উল্লেখ করে। মামলার বিবরণে জানা যায়, প্রীতি নোয়াখালীর ছেলে ঢাকাস্থ সুজন পালের সাথে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে এবং অর্থ হাতানোর জন্য প্রেমের ফাঁদ পাতে।সুজনের মাধ্যমে প্রীতি বাইরাইন প্রবাসী নরসিংদির ছেলে হৃদয় সূত্রধরের সাথে ফেসবুকে পরিচয় হওয়ার পর একে অপরের সাথে কথাবার্তার এক পর্যায়ে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রীতি হৃদয়কে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বলে যে, আমি তোমাকে ভালোবাসি, আমি তোমাকে ছাড়া বাঁচবো না, তুমি আমাকে বিবাহ না করলে আমি আত্মহত্যা করবো এই কথা বলে কান্নাকাটি করে প্রীতি তার হাতে ব্লেড দিয়া পোচিয়ে রক্তক্ষরণের ছবি হৃদয়ের মেসেঞ্জারে পাঠায়। তাতে হৃদয় প্রীতির প্রেমে পড়ে যায় এবং প্রতিনিয়ত কথা বার্তা বলতো। সুজন পাল হদয়কে বলে যে, তুমি প্রীতিকে বিবাহ করলে সুখি হবে।

এক পর্যায়ে সুযোগ বুঝে প্রীতি বিভিন্ন কথা বলে টাকা পাঠানোর জন্য বললে হৃদয় বিগত ০৪/০৩/২০২২ তারিখে বিকাশ নম্বরে ১,৫০,০০০ টাকা, কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ৮০,০০০ টাকার মালামাল সহ সর্বমোট ২,৩০,০০০ টাকা ১ম প্রদান করে।পরবর্তীতে হৃদয় ছুটিতে বিগত ২৫/৯/২০২২ইং তারিখে দেশে আসলে প্রীতির সাথে দেখা করতে চেয়ে বিবাহের প্রস্তাব দিলে প্রীতি ও সুজন পাল পরস্পর যোগসাজশ করে ২৮/১০/২০২২ইং মেহার রেলস্টেশনে আসতে বলে। হৃদয় তার সাথে তার এলাকার প্রান্ত নামে এক আত্মীয়কে সাথে করে ঘটনাস্থলে আসলে প্রীতি বলে যে, আমি তোকে চিনি না, তোর সাথে আমার কোন সম্পর্ক নাই, আমি তোর কাছ থেকে কোনো টাকা পয়সা কিংবা কোন জিনিস পত্র নেই নাই, তুই যদি আর কোন দিন আমার সাথে যোগাযোগ করিস তাহলে তোকে ধর্ষণের মামলা সহ বিভিন্ন মামলা দিয়ে জেল খাটাবো।

এই নিয়ে কথা কাটাকাটি হলে একপর্যায়ে সুজন এসে প্রীতিসহ হৃদয়কে এলোপাথারী কিল ঘুষি লাথি মারিয়া মারাত্মক জখম করে।প্রান্ত রক্ষা করতে এগিয়ে আসলে তাকেও মারধর করে।পরবর্তীতে হৃদয় শাহরাস্তি মোকাম বিজ্ঞ আমলী আদালতে প্রীতি পালকে ১নং আসামী ও সুজন পালকে ২নং আসামী করে মামলা দায়ের করে যার মামলা নং-সিআর ৪৫৪/২২। মামলার সাথে প্রীতি এবং হৃদয়ের মেসেঞ্জারের কথোপকথনের স্ক্রিনশর্টের কপি, সিঁধূর ও ননজুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্পের মাধ্যমে একাধিক ছেলের সাথে বিবাহের ছবি সংযুক্ত করে জমা দেন।মামলার তদন্তভার পড়ে গোয়েন্দা সংস্থা ডিটেকটিভ ব্রাঞ্চ(ডিবি) এর উপর।

সর্বশেষ