৫৭ বছরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

আজ শুক্রবার (১৮ নভেম্বর) চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের সর্ববৃহৎ এই বিদ্যাপীঠটি ৫৬ বছর পেরিয়ে ৫৭ বছরে পা দিচ্ছে। এ উপলক্ষে নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

১৯৬৬ সালের ১৮ নভেম্বর দুশো ছাত্র ও চারটি বিভাগ নিয়ে ২১০০ একর আয়তনে যাত্রা শুরু করে পাহাড় ও অরণ্যে ঘেরা নৈসর্গিক ক্যাম্পাস চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

শহর থেকে ক্যাম্পাসের দূরত্ব প্রায় ২২ কিলোমিটার। তাই শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের জন্য ১৯৮০ সালে চালু হয় শাটল ট্রেন। এটি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়কে এনে দিয়েছে স্বাতন্ত্র্য। যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকো বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী পরিবহনের জন্য ছিল নিজস্ব ট্রেন। কিন্তু বর্তমানে তা বন্ধ থাকায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ই পৃথিবীর একমাত্র শাটল ট্রেনের বিশ্ববিদ্যালয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভূঁইয়া গতকাল বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের কর্মসূচি তুলে ধরে বলেন, শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় আনন্দ শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে দিবসটি পালনের উৎসব শুরু হবে। এরপর কেক কাটা, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, প্রবন্ধ পাঠ, আলোচনা সভা ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে চলবে দিনব্যাপী নানা আয়োজন। ইতোমধ্যেই পুরো ক্যাম্পাসজুড়ে আলোকসজ্জার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরিণ আখতারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ। এরপর বিকেল ৩টা থেকে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। আয়োজনে আবৃত্তি, নৃত্য, নাটকের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ স্থানীয় ব্যান্ডদল গান পরিবেশন করবেন।

চবির সাবেক বর্তমান শিক্ষার্থীদের সহযোগিতায় আধুনিক উন্নত জ্ঞান সৃজনের মাধ্যমে ঐতিহ্যবাহী এই প্রতিষ্ঠানকে বিশ্বে পরিচিত করতে সবার আন্তরিক সহযোগিতা চেয়েছেন উপাচার্য অধ্যাপক শিরিণ আক্তার।

সর্বশেষ