সমাবেশস্থলে রাত কাটাচ্ছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা

যানবাহনের শ্রমিকরা ধর্মঘটের ডাক দেওয়ায় সকল ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তাই বিএনপির বরিশাল বিভাগীয় গনসমাবেশে যোগ দিতে দুই দিন আগেই বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে নগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যানে সমাবেশ মঞ্চের পাশে অবস্থান নিয়েছেন বিভিন্ন জেলা উপজেলারনেতা কর্মীরা। তারা সামিয়ানা টানিয়ে তার নিচে ঘাসের ওপর চাদর, কাপড়, হোগলপাটি ও প্লাস্টিকের চট বিছিয়ে মাঠেই রাত কাটানোর ব্যবস্থা করেছেন।

বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) রাত ১১টার দিকে এ চিত্র দেখা গেছে।

 

সমাবেশস্থলে রাত কাটাচ্ছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা

সমাবেশস্থলে বিএনপি নেতাকর্মীরা

কেউ মাথার নিচে ব্যাগ, কেউ কাঁথা, কেউ খাবারের প্যাকেট বালিশ হিসেবে ব্যবহার করছেন। অন্য দিকে সমাবেশস্থলে মঞ্চের পাশেই চলছে রান্না-বান্না আবার কেউ কেউ প্যাকেটজাত খাবার কিনে খাচ্ছেন। 

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার চর মাইক্কা ইউনিয়ন যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম সরদার বলেন, লঞ্চ চলতে দেবে না এই খবর জানতে পেরে ট্রলার ভাড়া করে দুই শ নেতাকর্মী গতকাল বেলা ১১টার দিকে বরিশালে এসেছি। রাতে কোথাও না গিয়ে সমাবেশ মঞ্চের পাশেই বিছানা করেছি। সমাবেশ সফল করতে আমার মতো হাজারো নেতাকর্মী এ সমাবেশস্থলে রাত দুটি কাটাবে। ‘

পিরোজপুরের কাউখালী থেকে আসা কৃষকদল কর্মী মোনাব্বর হোসেন বলেন, ‘সকালেই বরিশালে আসছি, দুদিন থাকতে হবে। তাই শুকনো খাবারের সঙ্গে লুঙ্গি-গেঞ্জি ও কাঁথা নিয়ে আসছি। দলীয় কর্মসূচির জন্য দুটি রাত এখানে কাটাতে কারো কষ্ট হবে না। এদিকে রাতে মশার উপদ্রব থেকে রক্ষার্থে কয়েলও বিতরণ করেছেন স্থানীয় নেতারা। ‘

বরগুনা থেকে সমাবেশে যোগ দিতে আসা সোহরাব হোসেন জানান, রাতে কারো বাসায় কিংবা হোটেলে থাকার ব্যবস্থা না করতে পেরে সমাবেশ মঞ্চের পাশে প্যান্ডেলের নিচে ঘুমানো ব্যবস্থা করেছেন। সেই সঙ্গে পাশেই রাতের খাবারের জন্য খিচুরি রান্না বসিয়েছেন।

ভোলা থেকে আসা মিলন জানান, রান্নার ঝামেলা এড়াতে রাতে প্যাকেটে করে বিরিয়ানি এনে খেয়েছেন তিন বন্ধু মিলে। তবে সকাল থেকে টিমের সবাই মিলে রান্না করে খাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এদিকে মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, জেলা উপজেলা থেকে আসা নেতাকর্মীরা মাঠেই লাকড়ি ও গ্যাসের চুলা বসিয়ে রান্নার আয়োজন করছেন। তবে এ রাতে অনেকে প্রস্তুত করা খাবার প্যাকেটে এনেও খাচ্ছেন। অনেক জায়গায় প্যাকেট নিতে কর্মীদের দীর্ঘলাইনেও দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে।

সর্বশেষ