দেশে ১২ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ মূল্যস্ফীতি

 

মূল্যস্ফীতি, যুদ্ধ থেকে সৃষ্ট জ্বালানি ও খাদ্যসংকট এবং সুদের উচ্চহারের সম্মিলিত চাপ বিশ্বকে ঠেলে মন্দার কিনারে নিয়ে যাচ্ছে। এর ফলে আর্থিক বাজারের স্থিতিশীলতাও হুমকির মুখে রয়েছে বলে সতর্ক করেছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)।  

গত তিন বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো মঙ্গলবার আইএমএফ ও বিশ্বব্যাংকের কর্মকর্তাদের সশরীরে বৈঠকের আগে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এই সতর্কবার্তা আসে। আর্থিক বাজারের সাম্প্রতিক অস্থিতিশীলতার প্রধান নিয়ামক মুদ্রানীতির সংকোচন ও ডলারের ব্যাপক দর বৃদ্ধির কারণে সৃষ্ট দুর্ভোগ সয়ে হলেও মূল্যস্ফীতির বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আইএমএফ।  

সদ্য প্রকাশিত ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক আউটলুকে আইএমএফ বলছে, বৈশ্বিক উৎপাদনের এক-তৃতীয়াংশের মালিক দেশগুলো আগামী বছর মন্দায় পড়তে পারে।সদ্য প্রকাশিত ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক আউটলুকে আইএমএফ বলছে, বৈশ্বিক উৎপাদনের এক-তৃতীয়াংশের মালিক দেশগুলো আগামী বছর মন্দায় পড়তে পারে।

বৈশ্বিক আর্থিক খাতের নেতৃত্বে থাকা সংস্থাটি ২০২৩ সালের বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস আরও কমিয়ে দিয়েছে। সদ্য প্রকাশিত ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক আউটলুকে আইএমএফ বলছে, বৈশ্বিক উৎপাদনের এক-তৃতীয়াংশের মালিক দেশগুলো আগামী বছর মন্দায় পড়তে পারে।   

সংস্থাটির প্রধান অর্থনীতিবিদ পিয়েরে অলিভিয়ের গৌরিঞ্চাস এক বিবৃতিতে বলেন, ‘সবচেয়ে বড় তিন অর্থনীতি যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও ইউরো অঞ্চলে প্রবৃদ্ধির গতি ধীর থাকবে। তবে সবচেয়ে খারাপ সময় এখনো আসেনি। ২০২৩ সাল অনেকের কাছেই মন্দার মতো মনে হবে।’

আইএমএফের হালনাগাদ পূর্বাভাস বলছে, উচ্চতর সুদের হার যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতির গতি ধীর রেখেছে, জ্বালানির উচ্চমূল্যে হিমশিম খাচ্ছে ইউরোপ এবং চীনে করোনা ঠেকাতে অব্যাহত লকডাউন ও দুর্বল আবাসন খাতের প্রভাবে আগামী বছর বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি  কমে ২ দশমিক ৭ শতাংশে নামতে পারে। গত জুলাইতে ২ দশমিক ৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস দিয়েছিল বৈশ্বিক ঋণদাতা সংস্থাটি। তবে এ বছরের জন্য প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস আগের ৩ দশমিক ২ শতাংশ বহাল রেখেছে।   

পরপর দুই বছর কোনো দেশের প্রবৃদ্ধি নেতিবাচক হলে সেই দেশ ‘টেকনিক্যাল মন্দা’য় পড়েছে বলে ধরা হয়। সামনের বছর ইউরোপের প্রধান কয়েকটি দেশের অর্থনীতি ‘টেকনিক্যাল মন্দা’য় পড়বে বলে মনে করছে আইএমএফ। এরই মধ্যে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি ও সরবরাহ ঘাটতির কারণে জার্মানি ও ইতালির উৎপাদন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

জিএফএসআর নামে আর্থিক স্থিতিশীলতা নিয়ে আরেক প্রতিবেদনে আইএমএফ বলছে, বাড়তে থাকা আর্থিক চাপ, তার সঙ্গে নগদ প্রবাহ হ্রাস ও চলমান আর্থিক ঝুঁকির কারণে সম্পদের মূল্যায়নে বিশৃঙ্খলা তৈরি হবে এবং আর্থিক বাজার সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি তৈরি হবে।

আইএমএফের অর্থ ও পুঁজিবাজার পরিচালক তোবিয়াস আদ্রিয়ান রয়টার্সকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘এত অনিশ্চয়তার মধ্যে ভালো কিছু চিন্তা করাও কঠিন। কয়েক দশক পেছনে গেলে আমরা দেখব বিশ্বে কত সংঘাত ছিল এবং একই সঙ্গে মূল্যস্ফীতিও অত্যন্ত উচ্চ ছিল।’

আর তাই এখন কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোর সামনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো অত্যন্ত যত্নের সঙ্গে ভারসাম্য রেখে মূল্যস্ফীতি এমনভাবে মোকাবেলা করা, যাতে অর্থনীতিতে বাড়তি সংকোচন না হয়। তা না হলে বিশ্ব অর্থনীতি ‘অপ্রয়োজনীয়ভাবে মারাত্মক মন্দা’ পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে পারে এবং ডলারের বিপরীতে মুদ্রার অবমূল্যায়নের কারণে চাপে থাকা উন্নয়নশীল বাজারগুলোর জন্য তা যন্ত্রণাদায়ক হতে পারে।

তবে গৌরিঞ্চাস মনে করেন, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণই এখন অগ্রাধিকার। এত সহজেই হাল ছেড়ে দিলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ‘কষ্টার্জিত বিশ্বাসযোগ্যতা’ নষ্ট হবে। এখন গতিমুখ পরিবর্তন বেশি আগে হয়ে যাবে। ‘আমরা যেটা বলছি, বর্তমান কৌশল ধরে রাখতে হবে। তার মানে এই নয়, এখনকার চেয়ে গতি বাড়াতে হবে। 

আইএমএফের পূর্বাভাস বলছে, বিশ্বে সাধারণ ভোক্তা মূল্যস্ফীতি এ বছর তৃতীয় প্রান্তিক শেষে ৯ দশমিক ৫ শতাংশ হবে; এটা আগামী বছরের চতুর্থ প্রান্তিকে ৪ দশমিক ৭ শতাংশে নামবে। 

সংস্থাটি বলছে, বর্তমান স্তর থেকে তেলের দাম ৩০ শতাংশ বাড়াসহ বিশ্ব অর্থনীতি ‘সম্ভাব্য সম্মিলিত ধাক্কা’ খেলে এই পূর্বাভাসেও কালো ছায়া পড়তে পারে। তা আগামী বছর বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধি ১ শতাংশের নিচে নামিয়ে দিতে পারে। প্রকৃত আয় ব্যাপকভাবে কমে গেলে এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়। 

আগামী বছর বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধি ২ শতাংশের নিচে নেমে যাওয়ার পক্ষে ২৫ শতাংশ সম্ভাবনা দেখছে আইএমএফ। ১৯৭০ সালের পর মাত্র পাঁচবার এমন ঘটনা ঘটেছে। আর বৈশ্বিক জিডিপি সংকোচিত হওয়ার ১০ শতাংশের বেশি সম্ভাবনা রয়েছে বলেও মনে করছে সংস্থাটি।

সর্বশেষ