গোপিবাগের বাসিন্দা ইকবাল হাসান জানান, এক ঘণ্টা পরপরই বিদ্যুৎ যাচ্ছে। বিদ্যুৎ যায় আর আসে।

 

 

ঢাকা বিদ্যুৎ বিতরণ কর্তৃপক্ষের (ডিপিডিসি) ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকাশ দেওয়ান সমকালকে বলেন, দিনে পাঁচ ঘণ্টা করে লোডশেডিং করতে হচ্ছে ৷ গত শনিবার বিদ্যুতের সর্বোচ্চ চাহিদা ছিল ১৩ হাজার ৭৮২ মেগাওয়াট, উৎপাদন ১২ হাজার ২৮৯ মেগাওয়াট ৷ সরকারি তথ্য মতে ঘাটতি ১হাজার ৪৫৯ মেগাওয়াট বলা হলেও প্রকৃত লোডশেডিং ৩ থেকে ৪ হাজার মেগাওয়াট ৷ বর্তমানে বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা প্রায় ২০ হাজার মেগাওয়াট ৷

তিনি আরও বলেন, জ্বালানি সংকটে প্রায় চার হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন বন্ধ রয়েছে ৷ কারিগরি সমস্যায় উৎপাদন বন্ধ আছে সাড়ে তিন হাজার মেগাওয়াট ৷

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, এলএনজি আমদানি কমে যাওয়ায় গ্যাস সংকট বেড়েছে ৷ ডলার সংকটে ফার্নেস অয়েল আমদানি করতে পারছে না কেন্দ্র মালিকেরা ৷ এতে উৎপাদন কম হচ্ছে ৷

পেট্রোবাংলা সূত্রে জানা গেছে, এলএনজির কার্গো আসা কমেছে ৷ এলএনজি থেকে গ্যাস সরবরাহ দৈনিক ৩৮ কোটি ঘনফুটে নেমে এসেছে ৷ আগে যা ছিল ৮৫ কোটি ঘনফুট ৷

বেসরকারি বিদ্যুৎকেন্দ্র মালিকদের সংগঠন বিপ্পার সভাপতি ইমরান করিম বলেন, প্রায় চার মাসের বিদ্যুৎ বিক্রির অর্থ সরকারের কাছে পাওনা রয়েছে ৷ অর্থ সংকটের কারণে অনেক মালিক ফার্নেস অয়েল আমদানি করতে পারছেন না ফলে উৎপাদন কম হচ্ছে ৷