অর্থ ও স্বর্ণালংকারসহ উদ্ধার ডাকাত দলের সদস্য গ্রেফতার ৪- ডিবি প্রধান

অর্থ ও স্বর্ণালংকারসহ উদ্ধার ডাকাত দলের সদস্য গ্রেফতার ৪- ডিবি প্রধান

হাসানুজ্জামান সুমন,বিশেষ-প্রতিনিধি:
জধানীর দারুসসালাম থানা এলাকায় ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতির ঘটনায় স্বর্ণালংকার ও স্বর্ণ বিক্রির নগদ অর্থ উদ্ধারসহ ৪ ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) এর গোয়েন্দা মিরপুর বিভাগ।
গ্রেফতারকৃতরা হলো- মোঃ সোহেল আহমেদ পল্লব, মোঃ পলাশ শেখ, মোঃ মাসুদ রানা ও রবিন হালদার পরেশ। এ সময় তাদের হেফাজত থেকে ২০ ভরি স্বর্ণালংকার ও স্বর্ণ বিক্রির নগদ ৫ লক্ষ টাকা উদ্ধার করা হয়।
আজ বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই ২০২২) দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানান ডিবি প্রধান, মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ, বিপিএম (বার), পিপিএম (বার)।
ডিবি প্রধান বলেন, টিটু প্রধানীয়া রাজধানীর তাঁতীবাজার এলাকার ধানসিঁড়ি চেইন অ্যান্ড বল হাউজ নামের একটি স্বর্ণালঙ্কারের দোকানে চাকরি করেন। উল্লেখিত স্বর্ণের দোকানে তৈরি গহনা তিনি দেশের বিভিন্ন জুয়েলারি দোকানে সরবরাহ করতেন। রবিবার (১৭ জুলাই) সকালে একটি স্কুলব্যাগে করে স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর ও সখীপুরের বিভিন্ন স্বর্ণের দোকানে সরবরাহ করতে যাচ্ছিলেন টিটু প্রধানীয়া। তিনি গাবতলী টার্মিনালে বাসের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এসময় অজ্ঞাতনামা চার/পাঁচজন লোক নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে জোর করে টিটুর কাছে থাকা স্বর্ণালঙ্কারের ব্যাগ ছিনিয়ে নেন। উল্লেখিত ঘটনায় টিটু প্রধানীয়ার অভিযোগের প্রেক্ষিতে দারুসসালাম থানায় একটি ডাকাতি মামলা রুজু হয়।
ডিবি প্রধান বলেন, মামলটি ছায়া তদন্ত শুরু করে গোয়েন্দা মিরপুর বিভাগের মিরপুর জোনাল টিম। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় ডাকাতির সাথে জড়িত চারজনকে শনাক্ত করা হয়। বুধবার (২০ জুলাই) ধারাবাহিক অভিযানে সদরঘাট ও মেরাদিয়া এলাকা থেকে সোহেল, পলাশ, মাসুদ ও রবিনকে গ্রেফতার করা হয়।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্য সম্পর্কে তিনি বলেন, গ্রেফতারকৃতরা ডাকাতির ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।
দারুসসালাম থানার রুজুকৃত মামলায় তাদেরকে রিমান্ডের আবেদনসহ বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। তাদের সহযোগীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।
গোয়েন্দা মিরপুর বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মানস কুমার পোদ্দার, পিপিএম (বার) এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে মিরপুর জোনাল টিমের টিম লিডার অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ সাইফুল ইসলামের নের্তৃত্বে অভিযানটি পরিচালিত হয়।

সর্বশেষ