Wednesday, October 5, 2022
Homeরাজনীতিরিজার্ভে টান পড়েছে বলেই লোডশেডিংয়ের সিদ্ধান্ত: টুকু

রিজার্ভে টান পড়েছে বলেই লোডশেডিংয়ের সিদ্ধান্ত: টুকু

শতভাগ বিদ্যুৎ উৎপাদন সত্বেও কেন এলাকাভিত্তিক লোডশেডিংয়ের সিদ্ধান্তে আসতে হলো সরকারকে এমন প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক বিদ্যুত প্রতিমন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

তিনি দাবি করেন, বিদ্যুৎ সঙ্কট মোকাবেলা করার জন্য এলাকাভিত্তিক লোকশেডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়নি। রিজার্ভে টান পড়েছে বলে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এখন তেল, গ্যাস আমদানি করতে পারছে না। যার ফলে কম বিদ্যুৎ খরচ হলে আমদানিও কম লাগবে।

সোমবার বিকালে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

টুকু বলেন, সরকার এতো ঢোল পেটালো সিঙ্গাপুর, ব্যাংককে ছাড়িয়ে গেছি। সেই রিজার্ভ এখন কোথায়? হঠাৎ করে নাই হয়ে গেলো কেন? আজকে দেশ অর্থনৈতিক ক্রাইসিসে দাঁড়িয়ে গেছে। আর এজন্য পুরোপুরি সরকার দায়ী।

তিনি বলেন, সরকারের পরিকল্পনায় বলা ছিলো ৬৪ভাগ বিদ্যুৎ উৎপাদন থাকবে সরকারের হাতে, আর ৩৬ভাগ থাকবে বেসরকারি হাতে। সরকার তড়িঘড়ি করে বেজ প্লান্টগুলো বেসরকারি সেক্টরে দিয়ে দিলো। সবকিছু মিলিয়ে আমি মনে করি এই পরিকল্পনা খারাপ, দূরভীসন্ধিমূলক এবং দুর্নীতিগ্রস্থ ছিলো। যার ফলে বিদ্যুতের যে আইন তা জলাঞ্জলি দিয়ে সংসদে আইন পাশ করে যাকে ইচ্ছে তাকে পাওয়ার স্টেশন দিয়েছে। শতভাগ বিদ্যুতের দেশ বলে হাতিরঝিলে অনেক ফানুস উড়লো, কিন্তু আজকে এসে আমরা বিদ্যুৎ পাচ্ছি না।

টুকু বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদন সরকারের হাতে রাখার দরকার ছিল, সরকার যদি বিদ্যুৎ উৎপাদন করতো তাহলে আজকের পরিস্থিতিতে পড়তে হতো না। অন্ধকারে থেকে পেমেন্ট করতে হচ্ছে, যেটি অতীতে দিতে হয়নি। দুর্নীতিপুষ্ট প্রকল্পগুলো করে, আনন্দ-ফূর্তি করে সরকার সবাইকে দেখানোর চেষ্টা করছে।

তিনি বলেন, এটা সরকারের প্রচারই প্রসার মনে হয়। যার ফলে আজ আমরা দুর্ভোগে পড়েছি। আমাদের সরকারি কোষাগার থেকে টাকা যাবে পাওয়ার স্টেশন মালিকদের কাছে, তারা পাওয়ার স্টেশন না চালিয়ে টাকা নিয়ে যাবে। আর শতভাগ ক্ষতিগ্রস্থ হবে দেশের জনগণ।  এই যে সরকার অনিয়ম করে গেলো, এটা আমাদের দেশ ও জাতিকে অনেকদিন বহন করতে হবে।

টুকু বলেন, আমরা বলেছিলাম, কিন্তু আমাদের কথার কোনও পাত্তাই দেয়া হয়নি। বিদ্যুৎ এমন একটি খাত যা সংরক্ষণ করা যায় না, উৎপাদন করলে খরচ হয়ে যাবে। এই খাতকে জনগণের সেবামূলক খাতে দিতে হবে, কিন্তু আবার বাণিজ্যিকভাবেও চালাতে হবে। না চালালে খরচ উঠবে না। সেকারণে সরকারের হাতে রাখলে যা হয়, সরকার অনেক সাশ্রয় করতে পারে, অনেক জিনিসের দাম কমিয়ে রাখতে পারে। কিন্তু এটা সম্পূর্ণ কমার্শিয়ালি চলে গেলো।

তিনি বলেন, আমাদের সরকারের পরিকল্পনা ছিলো, ট্রান্সমিশন ও ডিস্ট্রিবিউশন আমরা প্রাইভেটকে দিয়ে দিবো। সরকারের কাজ বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিদ্যুতের বিল তোলা না। কিন্তু এর উল্টোটা করেছে, বিদুতের প্লান্ট দিয়ে দেয়া হয়েছে প্রাইভেট সেক্টরকে। এখন এর ফল ভোগ করে। লস এসেসম্যান্ট না করে বিদ্যুৎ উৎপাদন করেছে এখন সেই ফল ভোগ করতে হচ্ছে।

‘এটি বড় ধরনের কূটচাল’ মন্তব্য করে টুকু বলেন, জনগণের টাকা অন্যের পকেটে দিয়ে দেওয়া বড় ধরনের কূটচাল। যেটি দুর্নীতিগ্রস্থ,ফ্যাসিস্ট সরকারই করে।’

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির মিডিয়া সেলের আহবায়ক জহির উদ্দিন স্বপন, সদস্য সচিব শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, সদস্য ব্যারিস্টার মীর মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন ও শায়রুল কবির খান।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular