Saturday, October 1, 2022
Homeজাতীয়১৫ জুলাই এক নজরে বাংলাদেশ

১৫ জুলাই এক নজরে বাংলাদেশ

১৫ জুলাই এক নজরে বাংলাদেশ

 

দেশের অর্থনীতি নিয়ে জিএম কাদের ও রিজভীর বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রীর

 

 

চট্টগ্রাম, ৩১ আষাঢ় (১৫ জুলাই) :

 

বাংলাদেশের অর্থনীতি শক্ত ভিতের ওপর দাঁড়িয়ে উল্লেখ করে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহ্‌মুদ বলেছেন, ‘জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের ও বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী শিক্ষিত মানুষ বলে জানতাম। শিক্ষিত হয়েও অর্থনৈতিক ইনডেক্সগুলো না পড়ে যে সমস্ত রাজনীতিবিদরা বক্তব্য দেন, তাদের কি বলবো!’

‘সম্প্রতি বিশ্বখ্যাত গবেষণা ও সংবাদ প্রতিষ্ঠান ব্লুমবার্গ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের যে ঝুঁকিপূর্ণ ইনডেক্স প্রকাশ করছে, সেখানে ২৫টি দেশের তালিকায় অনেক বড় বড় দেশ আছে, কিন্তু বাংলাদেশের নাম নেই’ উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘এই সংবাদগুলো কি এই সমস্ত রাজনীতিবিদরা পড়েন না? না পড়েই তারা যে সব বক্তব্য রাখছেন, সেগুলো তো গুজব রটানোর শামিল। আমি আশা করবো, শিক্ষিত মানুষগুলো যেন অশিক্ষিতের মতো কথা না বলেন।’

আজ চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের বক্তব্য ‘বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা হতে পারে’ এবং বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভীর বক্তব্য ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ এখন সর্বকালের সর্বনিম্ন পর্যায়ে’ এ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, দেশের জিডিপির ৪৫ শতাংশ পর্যন্ত বৈদেশিক ঋণ নিরাপদ। সে জায়গায় আমাদের বৈদেশিক ঋণ জিডিপির মাত্র ১৬ শতাংশ এবং এর বিপরীতে সুদের ব্যয় জিডিপি’র মাত্র ২ শতাংশ। আর জিডিপির ৫৫ শতাংশ পর্যন্ত সরকারি ঋণ নেয়া যায়। সেই জায়গায় আমাদের ঋণ মাত্র ৩৬ শতাংশ। সুতরাং দেশের অর্থনীতির ভিত শক্ত।

বাংলাদেশ আর শ্রীলঙ্কা এক নয় উল্লেখ করে ড.  হাছান বলেন, বাংলাদেশ আজ পর্যন্ত বৈদেশিক ঋণের কোনো কিস্তি পরিশোধ করার ক্ষেত্রে কখনো দেরি করেনি, সময়মতো ঋণ পরিশোধের ক্ষেত্রে উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান সবার ওপরের দিকে।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে দৃঢ় ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়ে আছে। সে কারণেই ব্লুমবার্গের মতো আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম যে ডাটা সংগ্রহ করেছে সেখানে অনেক বড় বড় দেশ পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, তুরস্ক, মেক্সিকো, মরক্কোসহ বহু দেশের নাম থাকা সত্ত্বেও সেখানে বাংলাদেশের নাম নেই। আমাদের রাজনীতিবিদ যারা এ নিয়ে কথা বলছেন, তাদেরকে বলবো একটু পড়াশোনা করার জন্য।

আইনের শাসন নিয়ে বিএনপি মহাসচিবের নেতিবাচক মন্তব্যের জবাবে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী বলেন, বিএনপিই আদালতের রায় মানে না। বিএনপির আইজীবীরাই আদালতে প্রধান বিচারপতির দরজায় অর্থাৎ দেশের প্রধান বিচারালয়ে লাথি মেরেছিল। তারা আইন-আদালত কোনটাই মানে না, আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখায়। আর দেশে আইনের শাসন আছে বিধায়ই আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্যকে আদালতের রায়ে জেলে  যেতে হয়, আওয়ামী লীগ নেতাদের বিচার হয়। আর আদালতে শাস্তি পাওয়া সত্ত্বেও বিএনপিনেত্রী বেগম জিয়াকে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা তার প্রশাসনিক ক্ষমতাবলে  মুক্ত থাকার সুযোগ করে দিয়েছেন। সেজন্য মির্জা ফখরুলের উচিত বিবৃতি দিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানানো।

রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে নির্বাচন কমিশনের সংলাপে বিএনপি যাবে না -এ বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি তো নির্বাচনকেই ভয় পায়। আশা করবো, তাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে, তারা ইসি সংলাপে যাবে। সেখানে গিয়ে তাদের ওজর-আপত্তি থাকলে সেটা জানিয়ে আসবে।’  

            এর আগে স্যাটেলাইট টেলিভিশন এটিএন বাংলার ২৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে কেক কাটেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহ্‌মুদ। এটিএন বাংলার চট্টগ্রাম ব্যুরোপ্রধান ও চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি আলী আব্বাস ও বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রতিনিধিবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

 

 

পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্প পরিদর্শন করেন রেলপথ মন্ত্রী

 

মাওয়া(মুন্সিগঞ্জ), ৩১ আষাঢ় (১৫ জুলাই) :

         আগামী সপ্তাহ থেকে পদ্মা সেতুতে রেললাইন বসানোর কাজ শুরু হবে বলে রেলপথ মন্ত্রী জানান। এছাড়া ২০২৩ সালের জুনের মধ্যে ঢাকা থেকে ভাঙ্গা পর্যন্ত নতুন লাইনে ট্রেন চালানো সম্ভব হবে বলেও তিনি জানান।

          রেলপথ মন্ত্রী মোঃ নূরুল ইসলাম সুজন আজ পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্প পরিদর্শনকালীন মাওয়া স্টেশনে উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে এসবকথা উল্লেখ করেন।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্বের ফলে আমাদের গর্বের পদ্মা সেতু অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়ন হয়েছে। এই সেতুতে রেল সংযোগের ব্যবস্থা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্প সরকারের দশটি অগ্রাধিকার প্রকল্পের একটি। এটি ঢাকা থেকে যশোর পর্যন্ত নতুন রেললাইন নির্মিত হবে। ২০২৪ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত প্রকল্পটির মেয়াদ ধরা আছে। সময়মতো বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্পকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে। একটি অংশ ঢাকা থেকে মাওয়া পর্যন্ত, দ্বিতীয় অংশ মাওয়া থেকে ভাঙ্গা পর্যন্ত এবং তৃতীয় অংশ ভাঙ্গা থেকে যশোর পর্যন্ত । এ সময় তিনি বিভিন্ন অংশের কাজের অগ্রগতি তুলে ধরে বলেন, মাওয়া থেকে ভাঙ্গা অংশের অগ্রগতি ৮০ শতাংশ, ঢাকা থেকে মাওয়া অংশের অগ্রগতি ৬০ শতাংশ এবং ভাঙ্গা থেকে যশোর সেকশনের কাজের অগ্রগতি ৫১ শতাংশ এবং সার্বিক কাজের অগ্রগতি ৬০ শতাংশ।

           মন্ত্রী উল্লেখ করেন, ঢাকা থেকে ভাঙা পর্যন্ত রেললাইন নির্মিত হলে ঢাকা থেকে ফরিদপুর রাজবাড়ী হয়ে খুলনা,যশোর,দর্শনা, বেনাপোল পর্যন্ত ট্রেন চালানো সম্ভব হবে। এছাড়া খুলনা থেকে মংলা পর্যন্ত নতুন লাইন যেটি এই বছর ডিসেম্বরের মধ্যে চালু হয়ে যাবে।

                   প্রকল্প পরিদর্শনের সময় বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক ধীরেন্দ্রনাথ মজুমদার, সংশ্লিষ্ট প্রকল্প পরিচালক আফজাল হোসেন, অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অবকাঠামো) কামরুল আহসানসহ কনসালটেন্সি সুপারভিশন সার্ভিসের সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

 

পশুত্বকে পরিহার করে মনুষ্যত্বকে জাগিয়ে তুলতে হবে : শিল্প প্রতিমন্ত্রী

 

ঢাকা, ৩১ আষাঢ় (১৫ জুলাই) :

শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার বলেছেন, কোরবানির প্রকৃত মর্ম অনুধাবন করে ত্যাগের মহিমায় সবার জীবনকে মহিমান্বিত করতে হবে এবং নিজেদের মধ্যে লুকিয়ে থাকা পশুত্বকে পরিহার করে মনুষ্যত্বকে জাগিয়ে তুলতে হবে।

আজ মিরপুর-১৩ এলাকায় দারুল উলুম কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে জুম্মার নামাজ আদায়ের পূর্বে উপস্থিত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় প্রতিমন্ত্রী এসবকথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী সকলকে পবিত্র ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, প্রত্যককেই সংযম ও ত্যাগের মানসিকতায় উজ্জীবিত হয়ে সমাজে শান্তি ও কল্যাণের পথ রচনা করতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে হবে। তিনি সমাজের বিত্তবানদেরকে এতিমসহ সকল অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে এবং তাদেরকে সাধ্যমোতাবেক সাহায্য ও সহযোগিতা করার আহ্বান জানান।

কামাল আহমেদ মজুমদার বলেন, করোনা মহামারির কবলে গোটা বিশ্ব বিপর্যস্ত হলেও পরম করুণাময়ের অসীম কৃপায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ করোনা পরিস্থিতি সাফল্যের সাথে মোকাবিলা করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার দেশের সার্বিক কল্যাণে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধুকন্যার সৃজনশীল নেতৃত্বেই বিদ্যমান করোনাসহ সকল বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে ২০৪১ সালের মধ্যেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে উঠবে।

প্রতিমন্ত্রী জুম্মার নামাজের পর সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালরাতে নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যবৃন্দসহ সকল শহিদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় বিশেষ মোনাজাতে অংশগ্রহণ করেন।

 

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন দেশকে এগিয়ে নিতে ভূমিকা রাখে : খাদ্যমন্ত্রী

 

নওগাঁ, ৩১ আষাঢ় (১৫ জুলাই) :

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন দেশকে এগিয়ে নিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে বলে উল্লেখ করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। তিনি বলেন, গণমাধ্যম এদেশের অনেক বড় অর্জনের সহযোগী।

মন্ত্রী আজ নওগাঁ প্রেসক্লাবে এটিএন বাংলা টেলিভিশনের রজতজয়ন্তী উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সংস্কৃতি বিশ্বের বাংলা ভাষা-ভাষী মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলেছে দেশের প্রথম স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন বাংলা। এসময় তিনি বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ ও অনুষ্ঠান প্রচারের আহ্বান জানান।

মন্ত্রী আরো বলেন, ইউক্রেন রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে খাদ্য ও জ্বালানিসহ বিভিন্ন পণ্যের দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নানা সমস্যা তৈরি হচ্ছে। ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সৃষ্ট সমস্যা সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করতে গণমাধ্যমকে জোরালো ভূমিকা রাখতে হবে।

নওগাঁ জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি কায়েস উদ্দিন এর সভাপতিত্বে জেলা প্রশাসক খালিদ মেহেদী হাসান, নওগাঁ সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ শরিফুল ইসলাম খান এবং নওগাঁ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শফিক ছোটন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

পরে এটিএন বাংলার ২৫ বছরপূর্তি উপলক্ষ্যে কেক কেটে অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন করেন খাদ্যমন্ত্রী। এর আগে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি শহরের গুরুত্বপূর্ণ মোড় প্রদক্ষিণ করে।

 

বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সমন্বিত সাড়াদান ও সংহতি জোরদারের আহ্বান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর

 

ঢাকা ১৫ জুলাই ২০২২ :

চলমান বহুমূখী বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বিশ্বব্যাপী সংহতি জোরদার ও সমন্বিত সাড়াদান প্রক্রিয়া গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার আলম। তিনি বলেন, গ্লোবাল ক্রাইসিস রেসপন্স গ্রুপের চ্যাম্পিয়নদের একজন হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংকটের ধরণ, মাত্রা ও প্রভাবের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ বৈশ্বিক সাড়াদান ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে বিশ্ব নেতাদের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন।

গতকাল নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদরদফতরে উচ্চ পর্যায়ের রাজনৈতিক ফোরাম (এইচএলপিএফ) ২০২২ উপলক্ষ্যে ‘২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজির অর্জন ত্বরান্বিত করা: চলমান সংকট মোকাবিলা এবং চ্যালেঞ্জ কাটিয়ে উঠা’ শীর্ষক মন্ত্রী পর্যায়ের গোলটেবিল বৈঠকে এসব কথা বলেন তিনি। জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমাসহ সংশ্লিষ্টরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

কোভিড-১৯ অতিমারি, জলবায়ু পরিবর্তন ও ইউক্রেন যুদ্ধের মতো বহুবিধ এবং ওভারল্যাপিং সঙ্কটসমূহের প্রভাবের পাশাপাশি অন্যান্য দীর্ঘস্থায়ী সংঘাতের প্রভাব তুলে ধরে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এসকল চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করেও যে ঘুরে দাঁড়ানো যায়, তা বাংলাদেশ দেখাতে সক্ষম হয়েছে। সরকার অর্থনীতিকে সচল রাখতে ২২ বিলিয়ন ডলারের প্রণোদনা দিয়েছে। সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী ব্যাপকভাবে সম্প্রসারিত হয়েছে। এছাড়াও, ভ্যাকসিনের জন্য বিলিয়ন ডলার খরচ করা হয়েছে।

          প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সমগ্র-সমাজ দৃষ্টিভঙ্গি, জাতীয় তথ্য ভান্ডার, এসডিজি ট্র্যাকার এবং স্থানীয়করণের প্রচেষ্টাসমূহ এসডিজি বাস্তবায়নকে ত্বরান্বিত করার পথ তৈরি করেছে।

বাংলাদেশ গৃহীত উদ্ভাবনী, অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং জন-কেন্দ্রিক অভিযোজন কৌশলের ওপর আলোকপাত করে প্রতিমন্ত্রী জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলায় বিশ্বব্যাপী সংহতি ও অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠায় জোর দেন। বাংলাদেশের উদাহরণ টেনে তিনি আরো বলেন, দুর্যোগ ঝুঁকি মোকাবিলা ও সংকট ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ আজ রোল মডেলে পরিণত হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী জাতিসংঘের নেতৃস্থানীয় সংস্থা, উন্নয়ন অংশীদার, বহুপাক্ষিক দাতা এবং বেসরকারি খাতকে সদস্য দেশসমূহের জাতীয় প্রচেষ্টাকে সমর্থন যোগানো, বিশেষ করে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ দেশসমূহকে আর্থিক ও প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদানে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান, যাতে তারা টেকসই, ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম ও অন্তর্ভুক্তিমূলক পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়ায় ফিরে যেতে পারে।

এর আগে ইরাকের উপপ্রধানমন্ত্রী ও পরিকল্পনা মন্ত্রী খালিদ নাজিম; অ্যান্ডোরার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মারিয়া উবাচ আই ফন্ট; ডোমিনিকা-এর পরিকল্পনা, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতা, টেকসই উন্নয়ন এবং নবায়নযোগ্য শক্তির মন্ত্রী ড. ভিন্স হেন্ডারসন, দক্ষিণ আফ্রিকার পরিকল্পনা, পর্যবেক্ষণ ও মূল্যায়ন মন্ত্রী মন্ডলি গুঙ্গুবেলে, ইউরোপিও ইউনিয়নের ফেডারেল মন্ত্রী ক্যারোলিন, জাতিসংঘে নিযুক্ত টোঙ্গার স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত ভিলিয়ামি ভাইঙ্গা টোন এবং জাতিসংঘে নিযুক্ত টুভালুর স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত স্যামুয়েলু লালোনিউ এর সাথে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

এসকল বৈঠকে তিনি ২০২২-২৩ মেয়াদে মানবাধিকার কাউন্সিল নির্বাচনে বাংলাদেশের প্রার্থীতাসহ পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular