বঙ্গবন্ধু অগ্রবর্তী চিন্তার অধিকারী ছিলেন: ড.কলিমউল্লাহ

মুজিব শতবর্ষ এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’র ১০২তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে জানিপপ কর্তৃক আয়োজিত বর্ষকালব্যপী জুম ওয়েবিনারে এক বিশেষ সেমিনারের ৩৩৬তম পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।
জানিপপ-এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রফেসর ড.মেজর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ, বিএনসিসিও’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন ইউএন ডিজএ্যাবিলিটিস রাইটস চ্যাম্পিয়ন ও অনারারি প্রফেসর আবদুস সাত্তার দুলাল এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন, ইন্টারন্যাশনাল রবীন্দ্র গবেষণা ইনস্টিটিউট এর পরিচালক ও সহযোগী অধ্যাপক ফারহানা আক্তার,ফারইস্ট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগের ফ্যাকাল্টি কাজী ফারজানা ইয়াসমিন,সিটিজেন বাংলা ডট কম এর সম্পাদক মুশফিকুর রহমান কাজল,নীলফামারীর জল ঢাকা থেকে পিএইচডি গবেষক ফাতিমা তুজ জোহরা ও জান্নাতুল ফেরদৌস তিথি।
সেমিনারে গেস্ট অব অনার হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন রংপুর মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আর্জিনা খানম এবং মুখ্য আলোচক হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন গোপালগঞ্জস্থ বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়’র বঙ্গবন্ধু ইনস্টিটিউট অব লিবারেশন ওয়ার এন্ড বাংলাদেশ স্টাডিজ এর অধীনে পিএইচডি গবেষণারত প্রশান্ত কুমার সরকার।
সভাপতির বক্তৃতায় ড.কলিমউল্লাহ বলেন,জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অগ্রবর্তী চিন্তার অধিকারী ছিলেন।
আব্দুস সাত্তার দুলাল বলেন, বঙ্গবন্ধু তাঁর এক জীবন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে এ জাতিকে শৃঙ্খলমুক্ত করে স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। তাঁর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের স্বপ্নই ছিল একটি শিক্ষিত ও উন্নত জাতিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা।
আর্জিনা খানম বলেন,তদানীন্তন পশ্চিম পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠী এদেশের মানুষের অধিকার কেড়ে নিলে স্বাধীন বাংলা প্রতিষ্ঠার ব্রত গ্রহণ করেন বঙ্গবন্ধু।
প্রশান্ত কুমার সরকার বলেন,শিক্ষার উন্নয়নের মাধ্যমে একটি আধুনিক, শিক্ষিত ও বিজ্ঞানমনস্ক জাতি গঠন করার মহৎ প্রত্যয় ছিল বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শনের সেরা স্তম্ভ।
কাজী ফারজানা ইয়াসমীন বলেন,পাকিস্তানের ঔপনিবেশিক সরকারের বিরুদ্ধে যে আন্দোলন তখন আস্তে আস্তে ঘনিভূত হতে থাকে তার ভেতরে শাসন কাঠামো পরিবর্তনের বিষয়টির সাথে সাথে যে বিষয়টি প্রাধান্য পেয়েছে তা হলো সর্বজনীন শিক্ষার প্রসার। বঙ্গবন্ধু এই আন্দোলনের পুরোভাগে শিক্ষার বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথে প্রাধান্য দিয়েছেন।
মুশফিকুর রহমান কাজল বলেন,বর্তমান সরকার বাংলাদেশের প্রভূত উন্নয়ন সাধন করেছে। ভোটের মাধ্যমে জনগণ এই উন্নয়নের মূল্যায়ন করবে। আর যদি তা করতে ব্যর্থ হয় তাহলে আমাদেরকে আবারও পিছিয়ে যেতে হবে।
ফাতিমা তুজ জোহরা বলেন,নারী শিক্ষার ওপর যথেষ্ট গুরুত্ব আরোপ করেছেন বঙ্গবন্ধু। তিনি মনে করতেন, শিক্ষা ক্ষেত্রে ব্যয় ভবিষ্যতের জন্য শ্রেষ্ঠ বিনিয়োগ।
জান্নাতুল ফেরদৌস তিথি বলেন,বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে জানিপপ’র এই আয়োজন সত্যিই প্রশংসনীয়।এই আয়োজনের ফলে নতুন প্রজন্মের মধ্যে বঙ্গবন্ধুকে জানার কৌতূহল বাড়ছে।
সেমিনারটি সঞ্চালনা করেন রয়েল ইউনিভার্সিটি অব ঢাকা’র সহযোগী অধ্যাপক,বিভাগীয় প্রধান ও ডেইলি প্রেসওয়াচ সম্পাদক দিপু সিদ্দিকী।
সেমিনারে অন্যান্যদের মধ্যে সংযুক্ত ছিলেন, সিরাজগঞ্জ থেকে বীমা প্রতিনিধি হ্যাপি, রাজশাহী থেকে ডা.মনোয়ার, সোনালী ব্যাংক কর্মকর্তা ই এ রুমা,ঢাকা থেকে মহিম প্রমুখ।

সর্বশেষ