Friday, September 30, 2022
Homeজাতীয়তথ্যপ্রযুক্তিতে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বিশেষ সম্মাননা পেলেন অধ্যাপক ড. লাফিফা জামাল

তথ্যপ্রযুক্তিতে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বিশেষ সম্মাননা পেলেন অধ্যাপক ড. লাফিফা জামাল

তথ্যপ্রযুক্তিতে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বিশেষ সম্মাননা পেলেন অধ্যাপক ড. লাফিফা জামাল

 

ঢাকা ১৪ জুন ২০২২ :

 

তথ্যপ্রযুক্তিতে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে বর্ষসেরা প্রযুক্তি নারী ব্যক্তিত্বের সম্মাননা পেলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবটিক্স অ্যান্ড মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. লাফিফা জামাল।

সোমবার ১৩ জুন রাজধানীর আগারগাঁওয়ের বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল মিলনায়তনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে ‘গার্লস ইন আইসিটি ডে ২০২২’ শীর্ষক দিবস উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে অধ্যাপক ড. লাফিফা জামালের হাতে সম্মাননা স্মারকটি তুলে দেয়া হয়। দেশের তথ্যপ্রযুক্তিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য তাকে এই সম্মাননা দেওয়া হয়। তিনি ছাড়াও বর্ষসেরা প্রযুক্তি নারী ব্যক্তিত্বের সম্মাননা পেয়েছেন সিএসআইডির প্রশিক্ষণ বিভাগের সহকারী পরিচালক আনিকা রহমান লিপি ও স্টার কম্পিউটার সিস্টেমস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রেজওয়ানা খান।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে অধ্যাপক ড. লাফিফা জামালের হাতে এ সম্মাননা তুলে দেন।

এ আয়োজনের সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক ড. মোঃ আব্দুল মান্নান, পিএএ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন এনজিও অ্যাফেয়ার্স ব্যুরোর মহাপরিচালক কে এম তরিকুল ইসলাম, সেন্টার ফর সার্ভিসেস এন্ড ইনফরমেশন অন ডিসএবিলিটি (সিএসআইডি) এর নির্বাহী পরিচালক খন্দকার জহুরুল আলম এবং প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ এর পরিচালক ডেনিস ও প্রায়ান।

সম্মাননা পাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় ড. লাফিফা জামাল বলেন, “তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে নারীর সংখ্যা তুলনামূলক কম হলেও ধীরে ধীরে এ সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। নারীদের কাজের যোগ্য মূল্যায়ন হলে অন্যান্য সেক্টরের মতো তথ্যপ্রযুক্তিতেও নারীর অংশগ্রহণ আরো বৃদ্ধি পাবে।” তিনি এ উদ্যোগের জন্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ ও সিএসআইডিকে বিশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। তিনি আরো বলেন, “সামাজিক বাধাগুলো অতিক্রম করার দৃঢ় মনোবল ও আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে একজন নারীর।

নিজের স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য লক্ষ্য থেকে বিন্দুমাত্র বিচ্যুত হলে চলবে না। নিজের মধ্যে পেশাদারিত্ব থাকতে হবে। নিজের পথ নিজেকেই তৈরি করতে হবে। ভয়কে জয় করে চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করার মানসিকতা গড়ে তুলতে হবে। তাহলেই নারীরা সব বাধা দূর করে এগিয়ে যাবে।”

উল্লেখ্য, ড. লাফিফা জামাল শিক্ষকতার পাশাপাশি তথ্যপ্রযুক্তি খাতের নারীদের উন্নয়নে দীর্ঘদিন ধরে নানা ধরণের কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শামসুন নাহার হলের প্রাধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি কার্যকরী পরিষদের নির্বাচিত সদস্য এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাচিত সিনেট সদস্য।

তিনি ২০০৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। ২০১৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাকে রোবটিক্স এন্ড মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারপার্সনের দায়িত্ব প্রদান করে। তার নেতৃত্বে ফিলিপাইনের ম্যানিলায় অনুষ্ঠিত ২০তম আন্তর্জাতিক রোবট অলিম্পিয়াড ২০১৮ এ বাংলাদেশ প্রথম স্বর্ণপদক পায়। তিনি বাংলাদেশ রোবট অলিম্পিয়াড কমিটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং আন্তর্জাতিক রোবট অলিম্পিয়াড কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য।

ড. জামাল বর্তমানে যুক্ত আছেন তথ্যপ্রযুক্তি খাতের নারীদের উন্নয়নে গঠিত সংগঠন বাংলাদেশ ওমেন ইন টেকনোলজি (বিওব্লিউআইটি) এর প্রেসিডেন্ট হিসেবে। এছাড়াও তিনি দায়িত্ব পালন করছেন বাংলাদেশ ফ্লাইং ল্যাবস এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের নারী উন্নয়ন ও ক্ষমতায়ন নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে। তিনি European Cooperation in Science and Technology এর অধীনে European Network for Gender Balance in Informatics শীর্ষক গবেষণা প্রকল্পে বাংলাদেশ প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছেন।

উল্লেখ্য, আইসিটি বিভাগের উদ্যোগে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি), সেন্টার ফর সার্ভিসেস এন্ড ইনফরমেশন অন ডিসএবিলিটি (সিএসআইডি) এবং প্লান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ এর সাথে যৌথভাবে গার্লস ইন আইসিটি দিবস আয়োজনের মাধ্যমে তথ্য প্রযুক্তিতে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে দেশসেরা ৩ জন নারীকে এই সম্মাননা দেওয়া হয়।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular