রয় ঝড়ে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হারলো বাংলাদেশ

0
58

আকাশ দাশ/ক্রীড়া প্রতিবেদকঃ

আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে শক্তিশালী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৮ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ।

২০০৫ সাল থেকে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের যাত্রা শুরু হলেও কখনো ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মুখোমুখি হয়নি বাংলাদেশ। তাইতো আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভের সপ্তম ম্যাচে শক্তিশালী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ১৪ রানের মাথায় ওপেনার লিটন দাসকে হারায় বাংলাদেশ। সঙ্গীকে হারিয়ে বেশিক্ষণ উইকেটে থিতু হতে পারেনি অন্য ওপেনার নাইম শেখ। দুই ওপেনারের বিদায়ে তিনে ব্যাট করতে নেমে অভিজ্ঞ সাকিব আল হাসান ফিরেন ক্রিস ওকসের শিকার হয়ে ৪ রান করে। দ্রুত তিন উইকেট হারিয়ে বসা বাংলাদেশ দল তখন শুরুর ধাক্কা সামাল দিতে চেয়েছিলো দুই অভিজ্ঞ মুশফিকুর রহিম এবং অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তবে ব্যক্তিগত ২৯ রানের মাথায় লিয়াম লিভিংস্টনের শিকার হয়ে মুশফিকুর রহিম ফিরলে ভাঙে দুইজনের চতুর্থ উইকেটের ৩৭ রানের ছোট জুটি।

মুশফিকের বিদায়ে মাঠে নামা তরুণ আফিফ হোসেন ফিরেন রান আউটের শিকার হয়ে ৫ রান করে। দলের এমন বিপর্যয়ে ব্যাট হাতে নিজেদের ইনিংস বড় করতে পারেনি নুরুল হাসান এবং মেহেদী হাসান। ব্যক্তিগত ১১ রানে মিলসের শিকার হয়ে ফিরেন মেহেদী হাসান একই বোলারের শিকার হয়ে নুরুল হাসান ফিরেন ১৬ রানে। তবে নিজেদের ইনিংসের শেষদিকে নাসুম আহমেদের ১৯ রানের ইনিংসে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে ১২৪ রানের ছোট সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। ইংল্যান্ডের হয়ে মিলস নেন ৩টি উইকেট ২টি করে উইকেট নেন লিভিংস্টন এবং মঈন আলি। একটি উইকেট নেন ক্রিস ওকস।

বাংলাদেশের দেওয়া ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দুই ওপেনারের ব্যাটে দারুণ সূচনা পায় ইংল্যান্ড। দলীয় ৩৯ রানের মাথায় ওপেনার জস বাটলারকে ব্যক্তিগত ১৮ রানে ফিরিয়ে বাংলাদেশকে প্রথম সাফল্য এনে দেন নাসুম আহমেদ। বাটলারের বিদায়ে তিনে ব্যাট করতে নেমে অন্য ওপেনার জেসন রয়কে সঙ্গী করে দ্বিতীয় উইকেটে ৭৩ রানের জুটি গড়েন দাওহিদ মালান। ৩৮ বলে ৫টি চার আর ৩টি বিশাল ছক্কায় ৬১ রানে রয়কে ফিরিয়ে বাংলাদেশকে দ্বিতীয় সাফল্য এনে দেন শরিফুল ইসলাম। রয় ফিরলেও জনি বেয়ারস্টোকে সঙ্গী করে বাকি কাজটুকু ভালোভাবে শেষ করেছেন মালান। অপরাজিত ছিলেন ২৫ বলে ২৮ রানে। বাংলাদেশের হয়ে একটি করে উইকেট নেন নাসুম আহমেদ এবং শরিফুল ইসলাম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here