নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
নরসিংদীর মনোহরদীতে আরিফ (২২) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রবিবার রাতে উপজেলা গোতাশিয়া শুকুর মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়ের পিছন থেকে তার লাশ পাওয়া যায়। নিহত আরিফ গোতাশিয়া গ্রামের ওসমানের ছেলে। সে গোতাশিয়া মুন্সির বাজারের সাউন্ড সিস্টেম ব্যবসায়ী। এ ঘটনায় একই গ্রামের ফজলুল হকের ছেলে রুবেল (২৪) এবং উত্তর রথেরকান্দা গ্রামের আব্দুল বাতেনের ছেলে শরিফ (২২) নামে আরিফের দুই বন্ধুকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত আরিফের নানা সুলতান উদ্দিন জানান, রবিবার সন্ধা সাড়ে ছয়টায় আরিফের বন্ধু রুবেল মোটর সাইকেল নিয়ে আমাদের বাড়ীতে আসে এবং আরিফকে সাথে নিয়ে ঘুরতে বের হয়। এশার নামাজ শেষে বাড়ীতে এসে আরিফকে না পেয়ে তার ব্যবহৃত মোবাইলে ফোন দিলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। পরে লোকজন নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করতে থাকি। রাত নয়টার দিকে গোতাশিয়া ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কাজল মিয়া মোবাইল ফোনে সংবাদ দেন, শুকুর মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়ের পিছনে এক মৃতদেহ পড়ে আছে।

পরে চেয়ারম্যানসহ পরিবারের লোকজন সেখানে গিয়ে আরিফের মরদেহ চিহ্নিত করি। এসময় তার হাত এবং কপালে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়। মনোহরদী থানার ওসি (তদন্ত) আরিফুল ইসলাম জানান, ‘লাশের মাথা থেতলে গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, নিহত আরিফ এবং এই হত্যাকান্ডের সাথে যারা জড়িত তারা মাদকাসক্ত ছিল। এ ঘটনায় নিহতের নানা সুলতান উদ্দিন বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন। আজ (সোমবার) দুপুরে রুবেল এবং শরীফ নামে দুজনকে সন্দেহজনকভাবে আটক করা হয়েছে। তাদেরকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।