ব্লকচেইন আগামী প্রযুক্তির নিরাপদ ভিত্তি: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ১২ কার্তিক ( অক্টোবর) :

ব্লকচেইন আগামী প্রযুক্তির নিরাপদ ভিত্তি উল্লেখ করে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, প্রযুক্তির ব্যবহার ছাড়া অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করা সম্ভব নয়। তাই দক্ষ মানব সম্পদ তৈরিতে সরকার শিক্ষার্থীদের স্কুলে কোডিংসহ তথ্যপ্রযুক্তি শেখানোর উদ্যোগ নিয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী আজ আগারগাঁওয়ে আইসিটি টাওয়ারের বিসিসি মিলনায়তনে প্রথমবারের মতো হংকং আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতা২০২০ অংশ নিয়ে অসামান্য সাফল্য অর্জন করার স্বীকৃতি স্বরূপ বাংলাদেশের ১২টি দলকে সনদ প্রদান অনুষ্ঠানে অনলাইনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ব্লকচেইন, ইন্টারনেট অভ্‌ থিংস, রোবোটিকসের মতো ফ্রন্টিয়ার প্রযুক্তি সম্পর্কে ধারণা পেতে দেশে ৩০০টি স্কুল অব ফিউচার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। যাতে ভবিষ্যতে তারা চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের উপযোগী দক্ষ মানুষ হয়ে গড়ে উঠতে পারে।

ফাইলিং এ পৃথিবীর অনেক দেশের চেয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে উল্লেখ করে তিনি বলেন, করোনাকালীন ৭ মাসে ১০ লক্ষ ইফাইলের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। সরকার ব্লকচেইন প্রযুক্তিভিত্তিক উদ্ভাবনী সমাধান তৈরিতে শিক্ষার্থী ও তরুণদের উৎসাহিত করছে, যাতে কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ অন্যান্য খাতে ব্যবহার করে সাশ্রয়ী সেবা প্রদান করা যায়।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আইটিখাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে সারা দেশে ২৮টি হাইটেক/আইটি পার্ক গড়ে তোলা হচ্ছে। ইতোমধ্যে নির্মিত যশোর শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে কয়েকটি বিদেশি কোম্পানিসহ ৪৮টি কোম্পানি ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তিন বছরেরও কম সময়ে এ পার্কে দেড় হাজারের অধিক কর্মসংস্থান হয়েছে।

বিসিসির নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেবের সভাপতিত্বে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড বাংলাদেশ (বিসিওএলবিডি) এর আহ্বায়ক বুয়েটের সাবেক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ এবং অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।