বাংলাদেশ দূতাবাস আম্মান, জর্ডান ও ঢাকা চেম্বার অভ্ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি একসাথে কাজ করবে
ঢাকা,২৭ জানুয়ারি ২০২১:
বাংলাদেশ দূতাবাস আম্মান, জর্ডান আগামী দিনগুলোতে জর্ডানে বাংলাদেশের বাণিজ্য সম্পর্ক জোরদার করার জন্য দূতাবাসের অর্থনৈতিক কূটনীতির আলোকে যৌথভাবে কাজ করার জন্য ঢাকা চেম্বার অভ্ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) এর সাথে একটি ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় জর্ডানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত নাহিদা সোবহান, ঢাকা চেম্বারের সভাপতি রিজওয়ান রাহমান, বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তা (প্রথম সচিব) মোঃ বশির এবং বাংলাদেশ দূতাবাস ও ডিসিসিআই’র সংশ্লিষ্ট কর্মকতাবৃন্দ যোগদান করেন। এ সভায় বাংলাদেশ দূতাবাস এবং ঢাকা চেম্বার অভ্ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি একসাথে কাজ করার জন্য এক মত পোষণ করে অভিন্ন কৌশল নির্ধারণ করে। ডিসিসিআই’র পক্ষ থেকে একটি অনলাইন প্রশিক্ষণের প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে এই সভা আয়োজন করা হয়।
রাষ্ট্রদূত স্বাগত বক্তব্যে বলেন, অর্থনৈতিক কূটনীতিকে বেগবান করার জন্য বাংলাদেশ দূতাবাস নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। মুজিববর্ষ এভং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদ্‌যাপনকে সামনে রেখে দূতাবাস জর্ডান সরকারে সাথে বিভিন্ন সাক্ষাৎ ও মতবিনিময় সভার আয়োজন করছে, যেখানে দু’দেশের বাণিজ্যিক সম্পর্ককে গতিশীল করার ওপর জোর দিচ্ছে। তিনি উল্লেখ করেন, অর্থনৈতিক কূটনীতিকে জোরদার ও সফল করার জন্য বেসরকারীখাতের অবদান খুবই জরুরি। রাষ্ট্রদূত আরো জানান, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাজারে সকল পণ্য রপ্তানিতে জর্ডান শুল্ক মুক্ত সুবিধা পেয়ে থাকে। তিনি বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের এ সুযোগ গ্রহণের লক্ষ্যে জর্ডানে আরো বেশি হারে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।
ঢাকা চেম্বার অভ্ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি সভাপতি রিজওয়ান রাহমান বলেন, ঢাকা চেম্বার ইতোমধ্যে প্রথমবারের মতো ‘ডিসিসিআই বিজনেস কনক্লেভ’-এর আয়োজন করেছে, যেখানে বাংলাদেশ-সহ ১০টি দেশের উদ্যোক্তাবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন এবং আগামীতে এ ধরনের আয়োজনে জর্ডানের উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহণের বিষয়ে দূতাবাসের সহযোগিতা কামনা করেন।
ডিসিসিআইয়ের সভাপতি কোভিডজনিত পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসলে জর্ডানে বিনিয়োগ সম্ভাবনাময় খাতে বিনিয়োগের লক্ষ্যে ঢাকা চেম্বার হতে একটি বাণিজ্য প্রতিনিধিদল প্রেরণে দূতাবাসকে সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদানের প্রস্তাব করেন। এছাড়া তিনি দু’দেশের সাংষ্কৃতিক কর্মকাণ্ড বিনিময়ের ওপর জোর দিয়ে বলেন, অর্থনৈতিক সহযোগিতার পাশাপাশি দু’দেশের মধ্যকার সাংষ্কৃতিক বন্ধন আরো সুদৃঢ় করা সম্ভব হলে তা ব্যবসায়িক কার্যক্রম সম্প্রসারণে গুরুত্বপূর্ণ ভমিকা রাখতে সক্ষম হবে। ডিসিসিআই সভাপতি জানান, মুজিববর্ষ উদ্‌যাপনকে সামনে রেখে ডিসিসিআই-এর পক্ষ হতে এ বছর প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ‘ডিসিসিআই ইনভেস্টমেন্ট সামিট’ আয়োজন করো হবে।
বাংলাদেশ দূতাবাস আম্মান, জর্ডান ও ঢাকা চেম্বার অভ্ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি-এর যৌথ উদ্যোগে জর্ডানে প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য উদ্যোক্তা তৈরির লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কোর্স আয়োজন করা হবে। ডিসিসিআই কর্তৃক আগ্রহী জর্ডানের নাগরিকদের জন্যও একই ধরনের কর্মশালার আয়োজনের বিষয়ে ঐক্যমত পোষাণ করা হয়। উক্ত জুম সভায় মুজিববর্ষ ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০তম বর্ষের বিভিন্ন উদ্‌যাপনে বাংলাদেশ দূতাবাস, আম্মান, জর্ডান ও ডিসিসিআই একসাথে কাজ করার বিষয়েও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।