পায়রা বন্দরের কাজে গতিশীলতা এসেছে, শীঘ্রই দৃশ্যমান হবে: খালিদ মাহমুদ চৌধুরী

কলাপাড়া (পটুয়াখালী), ১১ শ্রাবণ (২৬ জুলাই) :

       নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, পায়রা বন্দরের কাজে গতিশীলতা এসেছে। চ্যালেঞ্জ আছে, সেগুলো মোকাবিলা করে শীঘ্রই পায়রা বন্দরকে দৃশ্যমান জায়গায় নেওয়া সম্ভব হবে।

       প্রতিমন্ত্রী আজ পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় পায়রা বন্দরের সম্মেলন কক্ষে বন্দর কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠকে এসব কথা বলেন।

       প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদেরকে শুধু স্বপ্ন দেখান না, তিনি স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে চলেছেন। করোনা পরিস্থিতিতেও প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, একজন মানুষ গৃহহীন থাকবে না। ধারাবাহিকভাবে কাজ হবে। আগামী প্রজন্মের জন্য সরকার কাজ করছে।

       এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য কাজী কানিজ সুলতানা, পায়রা বন্দরের চেয়ারম্যান কমডোর হুমায়ুন কল্লোল এবং বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক।

       প্রতিমন্ত্রী পায়রা বন্দরের অফিস প্রাঙ্গণে একটি গাছের চারা রোপণ করেন। পরে, প্রতিমন্ত্রী বন্দরের উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে সংসদ সদস্য মোঃ মহিবুর রহমান, সংসদ সদস্য কাজী কানিজ সুলতানা, পায়রা বন্দর ও বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান উপস্থিত ছিলেন।

       বৈঠকে জানানো হয়, ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে এ পর্যন্ত ৭৩টি জাহাজ পায়রা বন্দরে এসেছে। এর মধ্যে ৩১টি কয়লাবাহী জাহাজ। সরকার এসব জাহাজ হ্যান্ডলিংয়ের মাধ্যমে ১৭৮ কোটি টাকা আয় করেছে।

       উল্লেখ্য, পায়রা বন্দর অবকাঠামো সুবিধাদি উন্নয়ন প্রকল্প ও প্রথম টার্মিনাল প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। এগুলোর কাজ ২০২২ সাল নাগাদ শেষ হবে।